বান্ধবী পরিকল্পনায় বিলকিস হত্যা

সারাবাংলা

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি
মানিকগঞ্জে পুলিশ সদস্য মাসুদ রানার স্ত্রী বিলকিস আক্তার (৩০) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে এক নারীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশ। বুধবার বেলা ১১টায় প্রেস বিফিংয়ের মাধ্যমে সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান। প্রেস বিফিংয়ে তিনি জানান, গত ১১ সেপ্টেম্বর শহরের ভাড়া বাসা থেকে বিলকিসের হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে সদর থানা পুলিশ। মরদেহটি উদ্ধারের পর মানিকগঞ্জ সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন বিলকিসের বাবা মজেম বেপারী। এঘটনায় আসামীদের ধরতে তৎপর হয় মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশ। গ্রেফতার হয় বিলকিস হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সব আসামি। বিলকিসের বাসা থেকে লুট হওয়া মুঠোফোন, টাকা ও স্বর্ণালংকার জব্দ করেছে পুলিশ।
সামান্য কিছু টাকা এবং স্বর্ণালংকারের লোভে বিলকিসকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে বিলকিসের বান্ধবী আঁখি মনি ওরফে লিপি (২০)। আর এই হত্যাকাণ্ডে সহায়তা করে কবির হোসেন (৩০), রিয়াজ উদ্দিন সরদার (২৬) এবং শাকিল হাসান (১৯) নামের তিন ব্যক্তি। তাদের কাছ থেকে নিহত বিলকিসের বাসা থেকে লুট হওয়া তিনটি মুঠোফোন, এক জোড়া রূপার নূপুর, তিন জোড়া স্বর্ণের কানের রিং, ব্রেসলেট একটি, লকেট একটি, কানের দুল দুইটি এবং নগদ পাঁচ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। এর আগে গত ১১ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জ জেলা শহরের রিজার্ভ ট্যাংকি এলাকার ভাড়া বাসা থেকে বিলকিসের হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে সদর থানা পুলিশ। নিহত বিলকিস আক্তার ছেলে ফাহিম (১২) ও মেয়ে দোলা আক্তারকে (৬) নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকতেন। তার স্বামী পুলিশ কনস্টেবল (সাময়িক বরখাস্তকৃত) মাসুদ রানা গাজীপুর জেলায় কর্মরত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *