বিশ্বে ‘ক্যারিশমাটিক লিডার’ শেখ হাসিনা : কাদের

জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহান বিজয় দিবসের এক আলোচনা সভায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিশ্ব মানচিত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ক্যারিশমাটিক ডিসিশন মেকিং লিডার’হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সোমবার (২১ ডিসেম্বর) মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিইবি) মিলনায়তনে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে যুক্ত হয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা এনেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়েছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে। তাই বিশ্ব মানচিত্রে তিনি এখন ‘ক্যারিশমাটিক ডিসিশন মেকিং লিডার’ হিসেবে আখ্যায়িত।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘স্বাধীনতা কারো দয়ার দান নয়। তাই স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও সংবিধান বিষয়ে কোন প্রকার কটুক্তি, আস্ফালন, ধৃষ্টতা সহ্য করা হবে না। ভাস্কর্য বিরোধীরা ধর্মের অপব্যাখা দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তারা ধর্মের নামে রাজনীতি করে নিজেদের সম্মান নিজেরাই নষ্ট করছে। তাদের এই যড়যন্ত্র রুখে দেওয়া হবে।’

স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘যারা জাতির পিতার ভাস্কর্য নিয়ে কটুক্তি করে তারা ধর্মের অপব্যাখ্যাকারী। তাদের কোন নীতি নাই, দেশের প্রতি ভালবাসা নাই। তারা দুর্নীতির মাধ্যমে সম্পদশালী হতে চায়। তাদের মূলোৎপাটন করে দেশকে রক্ষা করতে হবে।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ এবং সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু। এ সময় সংগঠনটির সহসভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, তানভির শাকিল জয়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হাসান জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক নাফিউল করিম নাফা, দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ, ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান নাঈম বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাধীনতা কবিতাটি আবৃত্তি করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজালাল মুকুল। এ ছাড়া সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক হাসান মতিউর রহমান ও শাহ আলম শিকদার জয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *