বোমা তৈরি করতে গিয়ে বিধস্ত বসতঘর ॥ আহত ৫

সারাবাংলা

নাসিরউদ্দিন ফকির লিটন, কালকিনি থেকে
মাদারীপুর জেলার কালকিনিতে মান্নান ওরফে মনাই হোসেন নামে এক ইউপি সদস্যের বসতঘরে বসে রাতের আঁধারে হাতবোমা বানানোর সময় বিস্ফোরিত হয়েছে। এতে ওই টিনের চালার বসতঘরটি সম্পুনরুপে বিধস্ত হয়েছে। এ সময় ৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের বরিশালসহ বিভিন্নস্থানে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে মাথাভাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এলাকা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলার সিডিখান ইউপি পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য মান্নান ওরফে মনাই হোসেনের নেতৃত্বে ইয়ামিন বেপারী ও সুমন শিকদারসহ বেশ কয়েকজন মিলে বসতঘরের ভেতরে বসে হাতবোমা তৈরির কাজ সম্পন্ন করে। এসময় হঠাৎ করে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়ে যায়। এতে করে ওই টিনের চালার ঘরটি উড়ে যায়। এ সময় ৬ জন আহত হয়। এদের মধ্যে গুরুতর আহত ইয়ামিন বেপারী (৪৫) ও সুমন সিকদারকে (৩০) বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতারে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার পর থেকেই ইউপি সদস্য মান্নান ওরফে মনাই পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানান। পরে ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী বেলায়েত কবিরাজসহ বেশ কয়েকজন বলেন, আমরা বোমার শব্দ শুনে ঘটনাস্থলে এসে দেখি রক্ত পরে রয়েছে। এবং টিনের চালার ঘরটি ছিন্নবিছিন্ন হয়ে গেছে। বোমাবিস্ফোরনে ৫-৬ জন লোক আহত হয়েছে দেখেছি। দুইজনকে বরিশাল পাঠানো হয়েছে। বাকিদের বিভিন্নস্থানে পাঠানো হয়েছে। সিডিখান ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মিলন মিয়ার ভাই সুজন অভিযোগ করে বলেন, মঙ্গলবার বিকালে স্কুলের পাশে আমাগো নির্বাচনী সভা করার কথা ছিল। এ সভায় হামলার করার জন্যই বর্তমান চেয়ারম্যান চানমিয়া শিকদারের কর্মী মনাইসহ বিস্ফোরনে আহতরা এ বোমা তৈরী করেছিল। ওই ইউপি সদস্য ও বোমা তৈরীর কারিগররা চাঁনমিয়া শিকদারের লোক।
অভিযুক্ত বর্তমান চেয়ারম্যান চাঁনমিয়া শিকদার বলেন, আমি দুরে আছি। এ ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। এব্যাপারে কালকিনি থানার ওসি ইসতিয়াক আসফাক রাসেল বলেন, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। আহতদেরকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *