বড়লেখার অপহরণের ৫৫ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবসায়ী উদ্ধার ॥ আটক ২

সারাবাংলা

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখার ব্যবসায়ীকে অপহরণের ৫৫ ঘণ্টার মধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে। মৌলভীবাজার জেলা পুলিশ ও র‌্যাবের বিশেষ অভিযানে গত কাল রাতে ব্যবসায়ী শশাংক কুমার দত্ত (৫৮) উদ্ধার করা হয়। এসময় পুলিশের বিশেষ অভিযানে অপহরণকারী ইসমাইল আহমেদ হারুন ও জুলমান আহমেদকে আটক করা হয় এবং পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকে। পরে সকালে অপহরণের মূল পরিকল্পনাকারী সবুজকে আটক করে পুলিশ। গতকাল সোমবার মৌলভীবাজার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস কনফারেন্সে এসব তথ্য তুলে ধরেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া। বড়লেখার সাত থেকে আট জনের কিডসাপার টিমের লক্ষ্য ছিলো ব্যবসায়ী শশাংক কুমার দত্তর কাছ থেকে মুক্তিপণ হিসেবে ৫০ লাখ টাকা আদায় করা। তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী মি. শশাংককে কিডনাপ করে ভারতের সীমান্তবর্তী বড়লেখা থানাধীন বাহাদুরপুর চা-বাগানের নির্জন জঙ্গলে চোখ বেধে আটকে রাখা হয়। ভিকটিম মি. শশাংকর ছোট ভাই সুবোধ কুমার দত্তর মোবাইলে ফোন করে মুক্তিপণ হিসেবে ৫০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীর বিষয়টি বড়লেখা থানায় জানালে জেলা পুলিশ, ডিবি পুলিশ ও র‌্যাবের যৌথ প্রচেষ্টায় ২ দিনের মধ্যে মি. শশাংককে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। মি. শশাংককে গত ৪ জুন আনুমানিক বিকেল ৬ টায় সিলেটের বিয়ানীবাজার থানাধীন মোল্লাপুর রাস্তার সম্মূখে পৌঁছালে একটি মাইক্রোবাস ভিকটিমের সিএনজি গাড়ীটি গতিরোধকরে ভিকটিমকে উক্ত মাইক্রোবাসটিতে তুলে জোরপূর্বক অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। পরে বিভিন্ন বিওআইপি নম্বর ব্যবহার করে মি. শশাংকর ছোট ভাই সুবোধকে ফোন করে ৫০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। কিডনাপাররা মি শশাংককে একটি ঘরে আটকে রাখে। সোর্সের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘরের চাপপাশ ঘেরাও করলে কিডনাপাররা তাকে নিয়ে গভীর জঙ্গলে লুকিয়ে রাখে। সোমবার রাতের প্রথম প্রহরে আনুমানিক দেরটার দিকে গভীর জঙ্গল থেকে দুই অপহরণকারী সহ উদ্ধার করে। পরে অপহরণের পরিকল্পনাকারী মোঃ সবুজকে একই জায়গা থেকে আটক করা হয়। এবিষয়ে ভিকটিমের ছোট ভাই সুবোধ কুমার দত্ত বাদী হয়ে বড়লেখা থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় জরিতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া। সোমবার দুপুরে প্রেস কনফারেন্স এর মাধ্যমে এসব তথ্য জানানো হয়। ব্যবসায়ী শশাংককে উদ্ধার করতে পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ জাকারিয়া বড়লেখা থানায় উপস্থিত থেকে ভিকটিমকে উদ্ধারের লক্ষ্যে দিক-নির্দেশনা দেন। কুলাউড়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাদেক কাউছার দস্তগীর এর নেতৃত্বে বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রতন চন্দ্র দেবনাথসহ বড়লেখা থানার অফিসার ফোর্স এবং জেলা গোয়েন্দা দল ও র‌্যাবের একটি দল অভিযানে অংশ নেয়। সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয় সোমবার শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের অভিযানে ৪ শত ২ পিছ ইয়াবা সহ মাদক চোরাকারবারী আইয়ুব আলীকে আটক করে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। আটক আইযুব আলীর বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *