ভারতে আশ্রয় নিয়েছে মিয়ানমারের পুলিশসহ ১৫ হাজার মানুষ

আন্তর্জাতিক

ডেস্ক রিপোর্ট: মিয়ানমারের ১৫ হাজারের বেশি মানুষ ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। মিয়ানমারের বিদ্রোহী এবং গণতন্ত্রপন্থিদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর লড়াই তীব্রতর হওয়ায় আরও অধিক মানুষ সীমান্ত পার হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। ভারত সরকারের একজন কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, গত ফেব্রুয়ারি থেকে ভারতের উত্তরপূর্ব ছোট মিজোরাম রাজ্যে মিয়ানমারের শরণার্থীরা আশ্রয় নিয়েছে। ১ ফেব্রুয়ারি গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির ক্ষমতাসীন সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী। এরপর দেশটির জনগণ সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু করলে নিরাপত্তা বাহিনী সহিংসভাবে বিক্ষোভ দমন শুরু করে। মিয়ানমারের অনেক পুলিশ জান্তার দমন আদেশ পালন না করে ভারতে আশ্রয় নেয়।

ভারতের মিজোরাম রাজ্যের পরিকল্পনা বিভাগের সহ সভাপতি এইচ রাম্মাবি জানান, এপ্রিল নাগাদ সু চি সরকারের কয়েকজন আইন প্রণেতাসহ প্রায় আঠারশ মানুষ রাজ্যে আশ্রয় নেয়। কিন্তু বর্তমানে সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৪০০ তে।

নিউজ এজেন্সি রয়টার্সকে টেলিফোনে তিনি বলেন, দিনে দিনে মিয়ানমারের আশ্রয়প্রার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে। মিয়ানমারের অনেক মানুষ মিজোরাম রাজ্যে আত্মীয়র বাসায় আশ্রয় নেয়ায় সঠিক সংখ্যা শনাক্ত করা কঠিন হচ্ছে।

ভারতের মিজোরাম রাজ্যের সঙ্গে মিয়ানমারের বেশ কয়েকটি অংশের নৃগোষ্ঠীগত সম্পর্ক রয়েছে। দুই দেশের বিভিন্ন অংশে যৌথ পরিবারের সদস্যরা বসবাস রয়েছে।

এইচ রাম্মাবি আরও জানান, মিয়ানমারের প্রায় ছয় হাজার মানুষ মিজোরামের রাজধানী আইজলে আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয় নেয়া অন্যরা ভিন্ন পাঁচটি জেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। মিজোরামের বাসিন্দারা এবং বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা শরণার্থীদের দেখভাল করছে। মিজোরাম রাজ্য কর্তৃপক্ষ ফেডারেল সরকারের কাছে সহায়তা চেয়েছে বলেও জানান তিনি।

মিয়ানমার থেকে ভারতে আশ্রয় নেয়া অনেকের করোনাভাইরাস পজেটিভ উল্লেখ করে এইচ রাম্মাবি বলেন, তাদের জন্য খাদ্য এবং মেডিকেল সহায়তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতের মিজোরাম রাজ্যের বিপরীত মিয়ানমারের চীন রাজ্যে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর লড়াই বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখ করে রাম্মাবি শরণার্থীদের সংখ্যা বৃদ্ধির আশঙ্কা করেন। তিনি বলেন, ভারত সীমান্ত থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে মিয়ানমারের পাহাড়ি শহর মিন্তাদাতে অভ্যুত্থানের পর সবথেকে তীব্র লড়াই সংগঠিত হচ্ছে। এই অঞ্চলের মিলিশিয়ারা জান্তার বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছে। এরপর শহর থেকে হাজার হাজার মানুষ পালিয়ে গেছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *