ভালোবাসা অনুভব ও ভালোবাসা দিবস

মতামত

‘ভালোবেসে সখী নিভৃতে যতনে আমার নামটি লিখো তোমার মনের মন্দিরে’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ভালোবাসা পাবার মিনতি কয়েকটি শব্দের মেলবন্ধন করে যেভাবে প্রকাশ করেছেন তাতে একটা প্রেমিক হৃদয় ভালো না বেসে কি থাকতে পারে! জীবনানন্দ দাসের ‘এতদিন কোথায় ছিলেন? পাখির নীড়ের মতো চোখ তুলে নাটোরের বনলতা সেন?’ এই প্রশ্নের মুখোমুখি কবি কি বনলতা সেনকে ছেড়ে কোথাও যেতে পেরেছিলেন অথবা কত বিনিদ্র রাত জেগে ভেবেছিলেন বনলতার কথা।

প্রিয় মানুষ বা প্রিয় কোনোকিছুর প্রতি এ ভালোবাসা মহাকালের শুরু থেকে। এর কোনো শেষ নেই, বিনাশ নেই। কখনো কখনো অভিমানের ডানায় ভর করে ভালোবাসা থিতু হয় ঠিকই, কিন্তু জল পেলে আবার প্রাণের ডাকে সাড়া দিয়ে চলে যায় প্রিয় মানুষটির কাছে। এর জন্য বিশেষ কোনো দিনের অপেক্ষায় থাকে না। ভালোবাসা অনুভব করতে না পারলে কখনো কেউ পারি দিতে পারে না মহাদেশ-মহাসমুদ্র।

ভালোবাসতে পারার অসীম অদৃশ্য শক্তি যে ধারণ করতে পারে সেই তো পারে জীবনকে ছুঁয়ে দেখতে। জীবনকে তখন তার কাছে অমৃত মনে হয়। জীবনের শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে সে প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির খাতা খুলে পাতা উল্টিয়ে-উল্টিয়ে দেখতে থাকে ভালোবাসারা কোথায়, ভালোবাসার সেইসব দীর্ঘ অনুভবের দিনগুলো কোথায়, কতদূরে।

মানুষের ভালোবাসা পেতে বড় বড় অফিসার হতে হয় না, কবি-সাহিত্যিক বা শিল্পী হতে হবে এমন নয়, এমনকি ধার্মিক হওয়ারও বিশেষ প্রয়োজন নেই; মানুষের ভালোবাসা পেতে একটি বিশাল উদার প্রেমিক মন থাকতে হয়, যে মন কেবল ভালোবাসা দেবার জন্য ব্যাকুল থাকে, পাবার জন্য নয়। মনের সাথে মনের গরণে মিললে ভালোবাসার স্রোতধারা এমনিতেই বয়ে যায়। স্থান, কাল, পাত্র তখন বিশেষ কোনো যুক্তি বা শর্ত হিসেবে দাঁড়ায় না।

ছোটবেলায় আমরা প্রথমে ভালোবাসতে শিখি মাকে, বাবাকে, আমাদের আশেপাশে যারা বা যাকিছু থাকে তাদের বা তাকিছুকে। এরপর বড় হতে হতে আমাদের পরিসর বড় হতে থাকে। বুদ্ধি বাড়তে থাকে, হৃদয় খুলতে থাকে। আমরা অনেক কিছু বুঝতে শিখি, অনুভব ও অনুধাবন করতে শিখি। ভালোবাসা অনুভবে নিমজ্জিত হয়ে একসময় ভালোবাসতে থাকি কত নর-নারীকে। তাদের সৌন্দর্য, তাদের সঙ্গ, তাদের কাছে টানার সক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় ভালোবাসা অনুভবের তীব্রতাকে। ভালোবাসলে কিংবা ভালোবাসা পেলে আমরা নব নব যৌবনে ভাসতে থাকি।

লেখক : ড. শারমিন ইসলাম সাথী , গবেষক, শিক্ষক ও লেখক।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *