মটমুড়া ইউপি নির্বাচনের তপশিল ঘোষণা দুই সদস্য প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ ইউপি সদস্যসহ আহত ৫

সারাবাংলা

জুলফিকার আলী কানন, গাংনী থেকে
দ্বিতীয় ধাপে মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ড বাওট গ্রামের সম্ভাব্য দুই সদস্য প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বর্তমান ইউপি সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। গত রোববার রাতে বাওট গ্রামের ভুটি বিশ্বাসপাড়াতে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেনÑ ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বর ও গ্রাম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দীন (৩০), বামন্দী ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা কনক বিশ্বাস, প্রতিপক্ষ বাওট গ্রাম আওয়ামী লীগের কর্মী মন্টু হোসেন (৫৫), তার স্ত্রী বুলুয়ারা খাতুন (৫০) ও ছেলে ইকলাস হোসেন (২৪)। আহতদের মধ্যে ইউপি সদস্য সাহাবুদ্দীন, ইকলাছ হোসেন ও কনক বিশ্বাস গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি হয়েছেন। বাকীরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরেছেন। দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১১ নভেম্বর মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ লক্ষে রোববার রাতে বাওট গ্রামের সাহাবুদ্দীন মেম্বর সমর্থক আব্দুস সামাদ ও রমজান আলী স্থানীয় একটি চা দোকানে বসে সাহাবুদ্দীন মেম্বারের পক্ষে ভোটের আলাপ করছিলেন। এসময় সাবেক মেম্বর ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা নিয়ামত আলীর সমর্থক ইকলাছ উদ্দীন সাহাবুদ্দীনের বিরুদ্ধে নানা কথা বলেন। এ ঘটনার জের ধরে রমজান আলী ও আব্দুস সামাদ মেম্বর সাহাবুদ্দীনকে খবর দেন। পরে সাহাবুদ্দীনসহ তার লোকজন ইকলাছ উদ্দীনের বাড়িতে গেলে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। পরে সংঘর্ষে রূপ নেয়। সাহাবুদ্দীন মেম্বর জানান, আমার দু’কর্মী গ্রামের একটি চা দোকানে বসে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা করছিলেন। এসময় সাবেক মেম্বর নিয়ামত আলীর পক্ষের কর্মী এখলাছুর রহমান তাদের হুমকি প্রদান করেন। এনিয়ে আমিসহ আমার লোকজন এখলাছকে বলতে গেলে, সে বাড়ি থেকে বেরিয়ে লোহার রড দিয়ে আমাদের পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন। এ বিষয়ে সাবেক মেম্বর নিয়ামত আলী জানান, এখলাছুর রহমান গত ইউপি নির্বাচনে সাহাবুদ্দীনের কর্মী হিসাবে ভোট করেছিলেন। সাহাবুদ্দীন মেম্বর নির্বাচিত হওয়ার পর নানাভাবে দুর্নীতি শুরু করেন। যার কারণে কর্মী এখলাছু সাহাবুদ্দীনের কাছ থেকে সরে এসেছেন। এ জন্যই ক্ষিপ্ত হয়ে সাহাবুদ্দীন তার লোকজন নিয়ে এখলাছসহ তার পরিবারের লোকজনকে হামলা করেছেন। এ ঘটনায় উভয়পক্ষই গাংনী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। গাংনী থানার ওসি বজলুর রহমান জানান, উভয় পক্ষের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *