মধুখালীতে রোপাআমন চারার দাম বেশি হওয়ায় হতাশ কৃষক

সারাবাংলা

মধুখালী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি
ফরিদপুর জেলার মধুখালী এ বছর মধুখালীর বিভিন্ন হাটে কৃষকেরা রোপা আমনের চারা সংগ্রহ করতে ব্যস্ত দেখা যাচ্ছে। তবে গত বছরের তুলনায় দাম বেশী হওয়ায় কৃষক হতাশ। উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় গত মৌসুমের তুলনায় চলতি বছর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রোপা আমন রোপনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্খা করলেও অতিবৃষ্টির কারণে জলাবদ্ধার সৃষ্টি হওয়ায় পর্যাপ্ত চারা থাকা সত্বেও কৃষক চারা রোপন করতে পারছে না ।
উপজেলার সবচেয়ে বড় দুটি হাট মধুখালী সদর ও কামারখালী হাটে সোমবার চারা সংগ্রহ করতে ভীর পড়ে গেছে কৃষকদের। প্রতি শত এক বোঝার চারার দাম ৬‘শ টাকা থেকে ৭‘শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গত বছর এর চারার দাম ২‘শ ৫০ টাকা থেকে ৩‘শ টাকা ছিল। গত বছরের তুলনায় এবার চারার দাম অনেক বেশী। দুটি হাটে চারার আমদানীও ব্যাপক দেখা যায়। চারা রোপন করতে কৃষকরা এখন ব্যস্ত সময় কাটাতে হচ্ছে। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত শত শত কৃষক দুটি হাটে চারা সংগ্রহ করতে হাজির হলেও চারা দাম বেশী হওয়ায় অনেক কৃষক বাড়ি ফিরে যেতে দেখা যায়। অনেকে আবার জমি উপযোগী থাকায় তারা বেশী দামেই চারা খরিদ করছেন।
পৌর সভার এলাকায় আদর্শ চাষী আব্দুল হাই বাঁশী জানান, এ বছর চারার দাম দ্বিগুন হওয়ায় কৃষক একটু চিন্তা ভাবনা করছে। আবার অনেকের পাট কাটা বাকি আছে বা জমিও তৈরী করতে পাওে নাই এ কারেন চারা কিনতে তেমন আগ্রহ দেখাচ্ছে না।
মধুখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলিভির রহমান জানান, রোপা আমন সাধারণত ভাদ্র মাস পর্যন্ত আবাদ করা হয়। ৯ আগষ্ট সোমবার পর্যন্ত ৬হাজার ২‘শ হেক্টর জমিতে ইতিমধ্যে রোপা আমনের চারা রোপন করেছে কৃষকরা। পুরো ভাদ্র মাস আর্থৎ আরও প্রায় একমাস কৃষক রোপাআমান চারা রোপন করবেন। তাতে এবার লক্ষ্যমাত্র ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। তিনি বলেন নতুন জাতের চারা হওয়ায় দাম একটু বেশী। তবে এ চারায় ফলন বেশী হয়।
চলতি বছর উপজেলায় একটি পৌরসভা ও এগারটি ইউনিয়নে রোপা আমনের আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮হাজার ৬শ ৮০ হেক্টর জমিতে। গত মৌসুমে এ উপজেলায় মোট রোপা আবাদ করা হয় ৮ হাজার ৪শ হেক্টর জমিতে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *