মধুখালী-নীমতলা বাইপাস সড়ক এখন মৃত্যুফাঁদ

সারাবাংলা

মধুখালী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি:
ফরিদপুর জেলার মধুখালী-নীমতলা বাইপাস সড়কের বর্তমান অবস্থা বেহাল। মধুখালী উপজেলার গাজনা ইউনিয়নের দীর্ঘ প্রায় ৭ কিলোমিটার এ সড়কটি পাড়ি দিতে প্রতিদিন শত শত মানুষকে ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। যানবাহনে চলা তো দূরের কথা, পায়েও হাঁটারও উপায় নাই। ছোট যানবাহনে চলতে গিয়ে প্রতিদিনই ঘটছে দুর্ঘটনা। এ যেন সড়ক নয়, এক মৃত্যুফাঁদ। রাজবাড়ী জেলার সদর উপজেলার একটি বৃহত্তর অংশ যা মধুখালী মুখি, সব মিলিয়ে উত্তর মধুখালীর গাজনা ও রায়পুর ইউনিয়ন ছাড়াও অত্র এলাকার প্রায় ৪০ থেকে ৫০ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। বর্ষাকাল প্রতিদিনের বৃষ্টিতে রাস্তাটি নাজুক অবস্থা। সড়কটিতে একটু বৃষ্টি হলেই জমে যায় পানি। সরেজমিনে দেখা যায় সড়ক জুড়ে তৈরি হয়েছে অসংখ্য খানাখন্দ, আর ছোট-বড় গর্ত। কোথাও রয়েছে কংক্রিটের পিচ ঢালাই, কোথাও আবার একেবারে উঠে গিয়ে খাদে পরিণত হয়েছে। দিনের বেলায় ভ্যান, নসিমন, করিমন, ইজিবাইক, মাহেন্দ্র চলাচল করলেও ভাড়া গুনতে হয় দ্বিগুণ। সন্ধ্যার পর এসব গাড়ির চালকরা এ সড়কে যেতে চায় না। ইজিবাইক চালক মো: ইপিয়ার শেখ বলেন, এ রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালানোর মতো অবস্থা নেই। চললে গাড়িরও ক্ষতি হয়। দুর্ঘটনার ঝুঁকি আছে। গাজনা ইউনিয়নের বেলেশ্বর এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য মো. মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু বলেন, দেড় বছর ধরে এ অবস্থায় পড়ে রয়েছে সড়কটি। কিন্তু কর্তৃপক্ষের কোনো মাথা ব্যথা দেখি না। যতো সমস্যা সাধারণ মানুষের। এ বিষয়ে গাজনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া বলেন, সড়কটি এর আগে শুনেছিলাম টেন্ডার হয়েছে। কিন্তু ঠিকাদার নিয়োগের পরও কাজ শুরু হয়নি। তিনি বিষয়টি নিয়ে সংশি¬ষ্টদের সঙ্গে দ্রুত আলাপ করবেন বলেও জানান। এ প্রসঙ্গে মধুখালী উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জানান, সড়কটি গত বছরে টেন্ডার সম্পন্ন হয়ে ঠিকাদার নিয়োগ হয়েছিল। কিন্তু কাজ শুরুর পর ঠিকাদার বরকত মন্ডল অর্থ পাচার মামলায় আটক হয়ে জেলে থাকায় কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সড়কের কাজ শুরু হয়ে বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারনে আজ সাধারন মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। শিগগিরই নতুন করে রিটেন্ডার করা হবে। তার পর সড়কটি সংস্কার কাজ শুরু হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *