মাদক বহনকারী ট্রাকের ধাক্কায় র‍্যাব সদস্য নিহত

সারাবাংলা

ডেস্ক রিপোর্ট: জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাদকদ্রব্য বহনকারী ট্রাকের পিছু ধাওয়া করেছিলেন র‌্যব সদস্য এফএস ইদ্রিস। ট্রাকটির সামনে গিয়ে ব্যারিকেডও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু পলায়নপর সেই ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন সাহসী এই র‌্যাব সদস্য।

রবিবার ভোরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে এই মর্মন্তুদ ঘটনা ঘটে।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

র‍্যাব জানায়, মাদকের একটি বড় চালান টঙ্গী থেকে গাজীপুরের মাওনার দিকে যাচ্ছে- এমন খবরে রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে গাজীপুরের পোড়াবাড়ি র‍্যাব ক্যাম্পের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার নেতৃত্বে রাস্তায় চৌকি বসিয়ে বিভিন্ন গাড়ি তল্লাশি করা হচ্ছিল। এসময় দ্রুতগতির একটি ট্রাক চেকপোস্ট অতিক্রম করে চলে যায়।

সন্দেহভাজন ট্রাকটিকে মোটরসাইকেল নিয়ে ধাওয়া করেন চেকপোস্টের দুজন র‍্যাব সদস্য। এসময় মাদক ব্যবসায়ীরা ট্রাক থেকে একটি গাঁজার বস্তা রাস্তায় ফেলে দিলে একজন র‍্যাব সদস্য (সিনিয়ার ডিএডি) তা নিজের হেফাজতে নেন। কিন্তু মাদক কারবারিদের বহনকারী ট্রাক আটক করতে মোটরসাইকেলে পিছু ধাওয়া করেন কনস্টেবল ইদ্রিস। তিনি একাই মোটরসাইকেল নিয়ে পিছু নেন ট্রাকটির। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকার সি স্টোর এলাকায় মাদক বহনকারী ট্রাকটির সামনে গিয়ে মোটরসাইকেল দিয়ে ব্যারিকেড দেন তিনি। কিন্তু ঘাতক ট্রাকটি তার মোটরসাইকেলকে পেছন থেকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে মাথায় আঘাত পেয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান র‍্যাব সদস্য ইদ্রিস।

স্থানীয় একজন এই দৃশ্য দেখে মোটরসাইকেল নিয়ে ট্রাকটির পিছু নেন। পরে ট্রাকটি আটক হলেও ঘাতক ট্রাকচালক ও তার সহযোগী পালিয়ে যায়।

করুণ মৃত্যুর শিকার র‌্যব সদস্য ইদ্রিসের বাড়ি মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার কেল্লাই গ্রামে। তার বাবার নাম ইমান মোল্লা। ২০১১ সালে তিনি পুলিশে যোগদান করেন। সবশেষ র‍্যাবে আসেন ২০১৯ সালের ৩০ মে।

র‍্যাব মুখপাত্র বলেন, দেশকে মাদক ও জঙ্গিমুক্ত করতে গিয়ে আমাদের অনেক সদস্য নিহত কিংবা আহত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত আমাদের ২৭ জন অকুতোভয় বীর সদস্য নিজেদের জীবন দিয়েছেন। এছাড়া প্রায় ৫৭০ জন সদস্য আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন। তাদের প্রতি আমাদের অকৃত্রিম কৃতজ্ঞতা, অশেষ শ্রদ্ধা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *