মানবপাচার চক্রের আট সদস্য গ্রেপ্তার

সারাবাংলা

ডেস্ক রিপোর্ট: একজন ‘মুদি দোকানি’ আর ‘চা দোকানি’ মিলে গড়ে তুলেছিলেন মধ্যপ্রাচ্যে মানবপাচার এবং চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার এক চক্র; তাদেরসহ সেই চক্রের আট সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। এরা হলেন- মো. সাইফুল ইসলাম ওরফে টুটুল (৩৮), মো. তৈয়ব আলী (৪৫), শাহ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন লিমন (৩৮), মো. মারুফ হাসান (৩৭), মো. জাহাঙ্গীর আলম (৩৮), মো. পালটু ইসলাম (২৮), মো. আলামিন হোসাইন (৩০) ও মো. আব্দুল¬াহ আল মামুন (৫৪)।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর বাড্ডা লিংক রোডে টুটুলের মালিকানাধীন তিনটি অফিসে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক জানান।
বুধবার (১৩ অক্টোবর) দুপুরে কারওয়ানবাজারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, অভিযানে তাদের গ্রেপ্তারের সময় চারজন ভুক্তভোগীকেও উদ্ধার করা হয়।

এ চক্রের হোতা টুটুল, তার সহযোগী হিসেবে কাজ করেন তৈয়ব। এইচএসসি পাশ টুটুল মেহেরপুরের গাংনীর কামদী গ্রামে মুদি দোকানি হিসেবে কাজ করতেন। মাঝে মাঝে ঢাকায় আসতেন। “অল্প সময়ে অধিক টাকার মালিক হওয়ার লোভে ধীরে ধীরে মানবপাচার চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন এবং দালাল হিসেবে বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে বিদেশে লোক পাঠানোর কাজ করতে থাকেন।”

র‌্যাব বলছে, এক পর্যায়ে বিদেশে লোক পাঠানোর নামে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় ‘টুটুল ওভারসিজ’, ‘লিমন ওভারসিজ’ ও ‘লয়্যাল ওভারসিজ’ নামে তিনটি অফিস খোলেন টুটুল। এসব এজেন্সির মাধ্যমে তিনি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বেকার ও শিক্ষিত বহু মানুষকে বিদেশে পাঠানোর কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে জানান মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, “টুটুলের সহযোগী তৈয়ব কোনো লেখাপড়া করেননি। তিনি চায়ের দোকানি ছিলেন। টুটুলের প্ররোচনায় মানব পাচারকারী চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। “তৈয়বের বিরুদ্ধে বহু লোককে প্রতারণামূলকভাবে বিদেশে প্রেরণ এবং দেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণামূলকভাবে টাকা পয়সা গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে।”

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *