মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ও ত্রাণ বিতরণে সেনাবাহিনী

জাতীয়

 

এসএম দেলোয়ার হোসেন
করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে সারা দেশে সেনাবাহিনীর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। জরুরি প্রয়োজনসহ নানা অজুহাতে ঘর থেকে রাস্তায় বের হওয়া বিভিন্ন যানবাহনের চালক-আরোহী ও পথচারীদের সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে সেনা সদস্যরা। একই সঙ্গে রোদ-বৃষ্টিতে ভিজেপুড়ে কাদাজল মারিয়ে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে সেনাবাহিনী। আজ রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) সূত্রে এসব তথ্যচিত্র পাওয়া গেছে।
আইএসপিআর জানায়, দেশে করোনাকাল শুরু হওয়ার পর থেকেই দেশব্যাপী ত্রাণ বিতরণ ও চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ বিভিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট। দেশে চলমান কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকা, বাগেরহাট, পটুয়াখালী ও রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে নানা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেছে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে কর্মসূচির আওতায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দুস্থ ও অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে সেনা সদস্যরা। একই সঙ্গে করোনার সংক্রমণরোধে দেশের বিভিন্ন জেলায় রাস্তায় নামা যাত্রী-পথচারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রীর ব্যবহার নিশ্চিতে সচেতন হওয়ার তাগিদ দিয়েছে সেনা সদস্যরা। সেই সঙ্গে পুরান ঢাকার কোতোয়ালী ও হাজারীবাগসহ রাজধানী বিভিন্ন এলাকা এবং বাগেরহাট, পটুয়াখালী ও রংপুরের বিভিন্ন এলাকায় যাত্রী-পথচারীদের মাস্কসহ সুরক্ষাসামগ্রী ব্যবহারের জন্য জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়েছে সেনাবাহিনী। করোনা ভাইরাসরোধে পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকা এবং বাগেরহাট, পটুয়াখালী ও রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার স্থানীয় কাঁচাবাজার, ব্যস্ততম রাস্তাঘাট, পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে মাইকিং করে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়েছে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট। এছাড়া বাগেরহাট, পটুয়াখালী ও রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে জনসাধারণকে ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে ঘরে ঘরে গিয়ে অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণসহ জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়েছে সেনাবাহিনী। এছাড়া করোনার সংক্রমণরোধে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মাইকিংসহ টহল ব্যবস্থা জোরদার করেছে সেনাবাহিনী। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত দেশব্যাপী সেনাবাহিনীর এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে আইএসপিআর।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *