মির্জাগঞ্জে মাদ্রাসা যেন গোয়ালঘর

সারাবাংলা

রনি খান, মির্জাগঞ্জ থেকে:
পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে শিক্ষক-কর্মচারীর গোয়ালঘরে পরিণত হয়েছে মাদ্রাসা। করোনা সংক্রমণে সারা দেশের ন্যায় পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও শ্রেণিকক্ষে বাঁধা আছে গরু ও ছাগল।  বুধবার উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইনিয়নের আমড়াগাছিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় একটি কক্ষে গরু বাঁধা, আরও দুটি কক্ষের বেঞ্চের উপরে ও নিচে বসে পাতা খাচ্ছে ছাগল এমনই চিত্র দেখা যায়। খোঁজ নিয়ে যানা যায়, করোনার কারণে মাদ্রাসা বন্ধ থাকার সুযোগে শেণিকক্ষ দখল করে গোয়ালঘর তৈরি করেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। মাদ্রাসার একটি কক্ষে নিয়মিত গরু বাঁধেন নৌশপ্রহরী শাহীন বিশ্বাস, অন্য ২ কক্ষে রয়েছে এলাকার বারেক বিশ্বাস ও মাদ্রাসার সহকারী ক্বারি মো. আফজাল বিশ্বাসের ছাগল। মাদ্রাসা বন্ধের শুরু থেকেই শ্রেণিকক্ষে গরু-ছাগল বেঁধে পালন করছে শিক্ষক-কর্মচারীরা মাদ্রাসার নৌশপ্রহরী মো. শাহীন বিশ্বাস গরু বাঁধার কথা স্বীকার করে বলেন, আজকেই (বুধবার) গরু বাঁধছি। কর্তৃপক্ষ কিছু বলে না। ছাগলগুলো আফজাল হুজুর ও বারেক বিশ্বাসের। সহকারী ক্বারি মো. আফজাল হোসেনের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি অসুস্থ। এ বিষয়ে কিছু জানি না। জানতে চাইলে মাদ্রাসার সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মাওলানা মোঃ ইউসুফ বলেন, আমি অনেক বার তাদের নিষেধ করেছি। কিন্তু আমার কথা শুনে না। মির্জাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোসাম্মৎ তানিয়া ফেরদৌস বলেন, সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করার জন্য মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। ঘটনার সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মির্জাগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী সাইফুদ্দীন ওয়ালীদ বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টির সত্যতা পাওয়া গেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *