মুন্সীগঞ্জে সেতুর অ্যাপ্রোচ না থাকায় ভোগান্তি

সারাবাংলা

রনি শেখ, মুন্সিগঞ্জ থেকে : মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে সেতুর অ্যাপ্রোচ না থাকায় চরম ভোগান্তি পড়েছে ওই এলাকার বাসিন্দা ও পথচারীরা। সরেজমিনে উপজেলার যশলং ইউনিয়নের নয়না গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, বাঘিয়া খালের উপর সরকারী অর্থায়নে নির্মিত সেতুটির দুইপাশের অ্যাপ্রোচ ধসে রয়েছে। মূল সেতু থেকে অ্যাপ্রোচের মাটি প্রায় ৩ ফুট নিচে থাকায় ও সেতু দিয়ে কোন যানবাহন যাতায়াত করতে পারছে না। সেতুর অ্যাপ্রোচের একপাশে বাঁশ দিয়ে সেতুতে উঠার জন্য সাঁকো বানিয়ে উঠানামা করছে যাতায়াতকারীরা। বাঘিয়া গ্রামের আমির হোসেন শেখ জানান, এই সেতুর গোড়ায় মাটি না থাকার কারণে আমাদের যাতায়াত করতে অনেক সমস্যা হয়। বৃষ্টি হলে তো হোচট খেয়ে পড়ে অনেকেই। আর আমাদের মত বৃদ্ধ মানুষের তো অনেক কষ্টই হয় এই সেতু দিয়ে চলাচল করতে।
ওই পথে সবজির বোঝা মাথা নিয়ে পাশের বাঘিয়া বাজারে যাচ্ছেন বৃদ্ধ কলিম শেখ (৫৪)। কোন মতে সবজির বোঝা ধরে অ্যাপ্রোচের পাশের বাঁশের সাঁকো দিয়ে পা গুনে সতর্কতার সঙ্গে পার হচ্ছে সে। তিনি জানান, সেতু হওয়ার থেকে না হওয়ায়ই ভালো ছিল। কাঠের পুল হলেও তার গোড়া এর চেয়ে ভালো থাকতো। ভালোভাবে পায়ে হেটে পার হওয়া যেতো। জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদফতরের অর্থায়নে নির্মিত ওই ৫ মিটার চেইনের ২৭ মিটার দৈর্ঘ্যরে সেতুটি ২০১৭ সালের ১৪ মে উদ্বোধন করা হয়।
উপজেলার যশলং, নয়না, বাঘিয়া গ্রামের কয়েক হাজার লোকজন ওই সেতু দিয়ে যাতায়াত করে। ভুক্তভোগীরা জানান, সেতুর গোড়ায় মাটি না থাকায় আমাদের হামাগুড়ি দিয়ে উপরে উঠতে হয়। পাশে বাঁশের সাঁকো থাকলেও অনেকে ভয়ে চড়তে হয়। অভ্যস্ত না হওয়ায় লাফিয়ে সাঁকোতে উঠানামা করেন। এ ব্যপারে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, আমি টঙ্গিবাড়িতে যোগদানের আগে এ সেতুর কাজটি হয়েছে, তবে আমি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবো।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *