মেসির পায়ে জয়ের দেখা পেল বার্সেলোনা

খেলাধুলা

স্পোর্টস ডেস্ক: ফেরেঞ্চভারোসের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে মাঠে নামার তিন ম্যাচ আগে বল পায়ে কোনো গোলের দেখা পাননি বার্সেলোনা অধিনায়ক লিওনেল মেসি। অবশেষে বার্সার হয়ে গোলখরা কাটালেন মেসি। তিন ম্যাচ পরে গোলের দেখা পাওয়া মেসি, অ্যাসিস্টও করলেন। ফলে চ্যাম্পিয়নস লিগের নতুন মৌসুমে ফেরেঞ্চভারোসের বিপক্ষে বড় জয়ে মিশন শুরু করলো মেসি বাহিনী।

ন্যু ক্যাম্পে মঙ্গলবার ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে হাঙ্গেরিয়ান ক্লাব ফেরেঞ্চভারোসের বিপক্ষে ৫-১ ব্যবধানে জিতেছে বার্সেলোনা। কাতালান ক্লাবটির পক্ষে আলাদা আলাদা পাঁচজন ফুটবলার এদিন জালের দেখা পেয়েছেন। বার্সার পক্ষে লিওনেল মেসি, আনসু ফাতি, ফিলিপ কৌতিনহো, পেদ্রি এবং উসমান দেম্বেলে গোল করেছেন। ফলে এল ক্লাসিকোর আগে বেশ ভালোভাবে প্রস্তুতি সেরে নিলো রোনাল্ড কোমানের দল। তবে ম্যাচে বার্সেলোনার একমাত্র অপ্রাপ্তি হচ্ছে ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকের লাল কার্ড দেখা।

গত আসরের কোয়ার্টার-ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে ৮-২ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার তিক্ত স্মৃতি নিয়ে ২৫ বছর পর ইউরোপ সেরার মঞ্চে ফেরা ফেরেন্সভারোসের বিপক্ষে মাঠে নামে বার্সা। ন্যু ক্যাম্পে এদিন শুরুর আক্রমণ অবশ্য আসে হাঙ্গেরিয়ান ক্লাবটির পক্ষ থেকে। ম্যাচের ১০ম মিনিটে স্বাগতিকদের জালে বল জড়ায় ফেরেঞ্চভারোসের এনগুয়েন। কিন্তু অফসাইডে থাকায় গোল থেকে বঞ্চিত হয়েছে অতিথিরা। ২০ মিনিটের সময় দলটির ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ইসায়েল দা সিলভার বুলেট গতির শট পোস্টে লাগলে হতাশা বাড়ে অতিথিদের। এর মাঝে অবশ্য ১৭ মিনিটের সময় মেসির ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শট রুখে দেন গোলরক্ষক।

তবে এদিন আলো ছড়ানো মেসিই ম্যাচে কাঙ্খিত গোলের সূচনা করেন। ম্যাচের ২৭ মিনিটে বল নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়া মেসিকে ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। আর সেখান থেকে সফল স্পট কিকে দলকে এগিয়ে দেন মেসি। এই আসরে মেসির এটি তৃতীয় গোল এবং যথারীতি পেনাল্টি থেকে সেটি পেয়েছেন এই আর্জেন্টাইন তারকা। চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে এটি মেসির ১১৬তম গোল।

৪২ মিনিটে বার্সার হয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ফাতি। ফ্রেংকি ডি ইয়ংয়ের পাস থেকে এই স্প্যানিশ তরুণ দারুণ ভলিতে বল জালে জড়ান। দ্বিতীয়ার্ধের সপ্তম মিনিটে দারুণ পাসিং ফুটবলে সাজানো আক্রমণে ব্যবধান আরও বাড়ায় বার্সেলোনা। গোলটি করেন সর্বশেষ মৌসুমে বার্সার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে জোড়া গোল করা কৌতিনহো। মেসির দারুণ পাস ফাতি হয়ে এই ব্রাজিলিয়ানের পায়ে পৌঁছাতেই বল জালে জড়ান তিনি।

ম্যাচের ৬৮ মিনিটে ডি-বক্সে ফেরেঞ্চভারোসের এনগুয়েনকে ফাউল করে লাল-কার্ড দেখেন বার্সা ডিফেন্ডার পিকে। ফেরেঞ্চভারোসের বিপক্ষে এটি খুব বেশি প্রভাব না ফেললেও ২৮ অক্টোবর জুভেন্টাসের বিপক্ষে ম্যাচে এই ডিফেন্ডারকে না পাওয়া বার্সার জন্য দুর্ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। ম্যাচে এই পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমান অতিথি দলটির ইউক্রেনের মিডফিল্ডার খারাতিন।

ম্যাচের ৮২ মিনিটে দেম্বেলের পাস থেকে স্কোরলাইন ৪-১ করেন ফাতির বদলি নামা পেদ্রি। পরবর্তীতে দেম্বেলে নিজেও গোলের দেখা পান। ম্যাচে ৮৯ মিনিটে ডি-বক্সে মেসির ছোট পাস পেয়ে জোরালো শটে গোলটি করেন এই ফরাসি ফরোয়ার্ড।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *