মোরেলগঞ্জে পাঁচ হাজার মৎস্য ঘের ভেসে গেছে

সারাবাংলা

এম.পলাশ শরীফ, মোরেলগঞ্জ থেকে : বঙ্গপোসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে উপকূলীয় এলাকা বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে দুই দিনের ভারি বৃষ্টিতে সাড়ে ৫ হাজার মৎস্য ঘের ভেসে গেছে। পৌরসভাসহ নিচু এলাকার শত শত মানুষ ও গবাদিপশু জলবন্দি অবস্থায় রয়েছে। অতিরিক্ত জল ও ঝড়ো হাওয়ায় বেশ কিছু কাচা বসতঘর ধ্বসে পড়েছে। নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। শুক্রবার মধ্য রাত ১২টা থেকে শুরু হওয়া অবিরাম ভারি বর্ষণ চলতে থাকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। ভারি বৃষ্টিতে মৎস্য খাতে ক্ষতি বেশী হয়েছে। সকাল ৮টার পর থেকেও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে। এবারের বৃষ্টিতে সাম্প্রতিক কালের ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও বুলবুলের চেয়ে মৎস্য খাতে ক্ষতি বেশী হয়েছে বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগীরা।
আড়াই কোটি টাকা মাছ ভেসে গেছে। রেকড়িয় খালের শাখা-প্রশাখায় বাঁধ দিয়ে বন্ধ করে রেখে জল চলাচল প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে প্রভাবশালীরা।
উপজেলা মৎস্য অফিস ও এলাকা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতি ও শুক্রবার এ দুইদিনের অবিরাম ভারি বৃষ্টিতে উপজেলার পঞ্চকরণ ইউনিয়নের পঞ্চকরণ, খারইখালী, দেবরাজ, মহিষচরনী গ্রামের ১ হাজার মৎস্য ঘের ও পুকুর তলিয়ে গেছে। জিউধরা ইউনিয়নের জিউধরা কাকড়াতলী, ডেউয়াতলা শনিরজোড়, বটতলা, চন্দনতলা, ঠাকুরানতলা, একরামখালী, সোমাদ্দারখালী, বরইতলা ২ হাজার পুকুর ও মৎস্য ঘের, বহরবুনিয়া ইউনিয়নের ঘষিয়াখালী, শনিরজোর, উত্তরফুলহাতা, পশ্চিম বহরবুনিয়া ১ হাজার মৎস্য ও পুকুর, নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের জিউধরা, আমুরবুনিয়া, গুয়াতলা, কুদঘাটা ১ হাজার মৎস্য ও পুকুর, মোরেলগঞ্জ সদর ইউনিয়নে গাবতলা গ্রামে পুকুর মৎস্য ঘের পানির নিচে নিমজ্জিত হয়েছে।
মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, দুই দিনের বৃষ্টিতে ২০টি গ্রামের মৎস্য ঘের, ছোট বড় পুকুর ৩ হাজার ২৪৬টি মৎস্য পানির নিচে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে। এতে কমপক্ষে আড়াই কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক মজুমদার, আব্দুর রহিম বাচ্চু, মাহমুদ আলী, জাহাঙ্গীর আলম বাদশা ও রিপন তালুকদার জানান, দু’দিনের ভারী বৃষ্টিতে মৎস্য ঘের ব্যবসায়ীদের অপূরনীয় ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে হাজার হাজার পুকুর ও ঘেরের মাছ। সরকারিভাবে এদের আর্র্থিক সহায়তা দিলে ক্ষতিগ্রস্ত এসব ঘের ব্যবসায়ীরা ক্ষতির কিছুটা পুষিয়ে উঠতে পারবে বলে তাদের ধারনা। এ ব্যাপারে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিনয় কুমার রায় জানান, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় খোঁজ নিয়ে জলে নিমজ্জিত পুকুর ও ঘের মালিকদের প্রাথমিক ক্ষতির তালিকা নিরুপন করে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। এ সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, দুইদিনের বৃষ্টিতে যেসব ঘের তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের তালিকা নির্ণয় করতে বলা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *