ময়মনসিংহে দুই শতাধিক প্রতিবন্ধীর মধ্যে জেলা পুলিশের খাদ্য বিতরণ

সারাবাংলা

ময়মনসিংহ অফিস:
প্রতিবন্ধীরা এমনতেই অসহায়। অনেকক্ষেত্রে পরিবারের বোঝা হয়ে পড়েছে। লকডাউন পরিস্থিতিতে প্রতিবন্ধিরা যেন মারাত্বক বোঝা না হয় সেই লক্ষ্যে এগিয়ে আসেন ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ। সবার রান্না ঘরে ভাতের গন্ধ ছুটুক এ প্রতিপাদ্য নিয়ে দুস্থ ও কর্মহীনদের জন্য স্বল্প¬ মূল্যের দোকান ১০ টাকায় দু’দিনের আহার বিক্রি কার্যক্রমের আওতায় গতকাল রোববার নগরীর কাচিঝুলি মোড় সংলগ্ন ভিকোরিয়া মিশন স্কুলে জেলা পুলিশ দুই শতাধিক প্রতিবন্ধীদের মধ্যে বিনামূল্যে দুদিনের আহার বিতরণ করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফাল্গুনী নন্দী উপস্থিত থেকে প্রতিবন্ধীদের মধ্যে দুদিনের আহার বিতরণ করেন। এর আগে ফাল্গুনী নন্দী বলেন, প্রতিবন্ধীরা প্রতিটি ক্ষেত্রেই অসহায়, আজকে দুদিনের আহার বিক্রি নয়, আজ প্রতিবন্ধীদের মধ্যে সমপরিমাণ আহার বিতরণ। বিনা পয়সায় প্রতিবন্ধীরা আহার পেয়ে একটু সময়ের জন্য হলেও যাতে খুশি হতে পারে। তিনি আরও বলেন, মানবিক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান জেলা পুলিশের আভ্যন্তরীণ সেচ্চা অনুদানের অর্থায়নে লকডাউন পরিস্থিতিতে নতুন করে বেকার, অসহায়, দুঃস্থ ও কর্মহীনদের পাশে দাড়িয়েছেন। সবার ঘরে রান্না ভাতের গন্ধ ছুটুক এ প্রতিপাদ্য নিয়ে ১০ টাকায় দুই দিনের আহার বিক্রি করে আসছে। লকডাউন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই আহার বিক্রি চলমান রাখার দাবি করে জেলা পুলিশ।
নগরীর কাচিঝুলি ভিক্টোরিয়া মিশন স্কুলে জেলা পুলিশ প্রতিবন্ধীদের মধ্যে ১০ টাকায় দুদিনের আহার বিক্রি করবে। এই ধারনায় বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিবন্ধীরা তাদের পরিবারের সদস্যদের সহায়তায় (গতকাল) রোববার সকাল থেকে এসে অপেক্ষা করতে থাকে। ১০ টাকা প্রতিকী মূল্যে আহার বিক্রি নয়, বিনা পয়সায় এই আহার তাদের মধ্যে বিতরণ করা হবে। এমন ঘোষণায় মুহুর্তে প্রতিবন্ধিদের মধ্যে বাড়তি খুশি ফিরে আসে। বিতরণকৃত খাদ্যপন্যের মধ্যে ছিল ৫ কেজি চাল, এক কেজি ডাল, আধা লিটার সয়াবিন তেল, আধা কেজি লবন, দুই কেজি আলু, পরিমাণ মত মশলা, পেঁয়াজ, রসুন ও কাঁচা মরিচ। এসময় উপস্থিত ছিলেনÑ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাফিজুর রহমান, ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ, পুলিশ পরিদর্শক ট্রাফিক (প্রশাসন) সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, পুলিশ পরিদর্শক ফারুক আহম্মেদসহ অন্যরা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *