ময়মনসিংহে বিনার আয়োজনে বিনা প্রযুক্তি পরিচিতি শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা

সারাবাংলা

ময়মনসিংহ অফিস : ময়মনসিংহে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) সাংবাদিকদের অংশগ্রহণে বিনা প্রযুক্তি পরিচিতি শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে বিনার ডঃ এম এ ওয়াজেদ মিয়া অডিটরিয়ামে এই প্রশিক্ষণ হয়। বিনার মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম সভাপতির বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ আজ শুধু খাদ্যে সয়ংসম্পুর্ণ নয়। বিনার বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাদের নিরলস পরিশ্রমে ১৮টি ফসলের ১১২টি জাত উদ্বাবন এবং তা কৃষক পযায়ে পৌছে দিয়ে খাদ্যে উদ্বৃত একটি দেশ হয়েছে। এই অবস্থায় নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য উৎপাদনে বিনা ও বর্তমান সরকার চ্যালেঞ্জ নিয়েছে। দানাদার জাতীয় ফসলের ভিতর ভিটামিন ও আয়রণ ডুকাতে বিনা প্রযুক্তিগতভাবে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। রোগ ও বালাইমুক্ত, পানিতে ভাসমান অবস্থায় এবং জলাবদ্ধ জমিতে চাষাবাদ করতে প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আদর্শ জাত, ফলন বেশি, চিকন চাল, মাজাদার ও রপ্তানীযোগ্য ফসলের জাত উদ্ভাবন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের প্রচেষ্টায় বিনা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। ক্ষুদা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ নিয়ে বিনা নিরলসভাবে কাজ করছে। আর এই লক্ষ পুরণ করতে পারলেই বিনার স্বার্থকতা পুরণ হবে। উত্তবঙ্গের মঙ্গা নিরসনে উপযুক্ত ফসলের জাত উদ্বভাবন করে বিনা ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে। বিনার উদ্ভাবিত বিনা ধান লবনাক্ত, বন্যা প্রবণ অঞ্চল, খড়া সহিষ্ণু অঞ্চলে চাষ করে সফলতা পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে জুম ও হাওর বরেন্দ্র এলাকায় চাষযোগ্য বিনাধান উদ্বভাবনে কাজ চলছে। এছাড়া পানি ছাড়া ফসল উৎপাদন, সার ছাড়া জৈব সার দিয়ে ফসল ফলাতে নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনে কাজ চলছে। সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, পিয়াজ নিয়ে গত বছর দেশে তুলপাড় চলে। পেয়াজ সাধারণত শীতকালে চাষ হয়। গ্রীষ্মকালে পেয়াজ চাষযোগ্য জাত উদ্ভাবণ করা হয়েছে। বিনাধান ১১ ও ১২ বন্যার পানির নীচে ১৫/২০ দিন থাকার পরও কোন ধরণের ক্ষতির সম্মুক্ষিণ হয়না। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে কৃষি কাজ যন্ত্র নির্ভর হয়েছে। যন্ত্রের মাধ্যমে চাষবাদ করা হলে খরচ কমে আসে। যান্ত্রিক উপায়ে চাল করতে হলে খন্ড খন্ড জমিতে চাষ করা সম্ভব নয়। তাই সমবায় ভিত্তিক চাষ করতে হবে। এ সমস্ত নতুন নতুন ফসলের জাত চাষ এবং কৃষি কাজ যন্ত্রের ব্যবহার করতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে অধিক প্রচারণা চালাতে সাংবাদিকদের আরো বেশি দায়িত্বশীল ভুমিকা নিতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিনা বোর্ড অব ম্যানেজমেন্ট ও ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বিনা এখন অনেক শক্তিশালী। বিনা বর্তমানে একেবারে কৃষকের ধারপ্রান্তে পৌছে গেছে। কুষকের কাছে বিনার গ্রহণযোগ্য বেড়েছে। বিনার নতুন নতুন উদ্বাবিত জাত সম্পর্কে আরো বেশি বেশি প্রচার করা হলে কৃষি প্রধান দেশ আরো বেশি উপকৃত হবে। তিনি আরো বলেন, বিনাকে তুলে ধরার অর্থ হলো, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তুলে ধরা। বিনার পিএসও ডঃ সাকিনা খানম এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিনার পরিচালক (গবেষণা) ডঃ হোসনেয়ারা বেগম, পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও পরিকল্পনা) ডঃ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, পরিচালক (প্রশাসন ও সাপোর্ট সার্ভিস) ডঃ মোঃ আবুল কালাম আজাদ, ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অমিত রায়। শুরুতে বিনার সিএসও ডঃ মোঃ ইকরাম উল হক বিনা প্রযুক্তি পরিচিতি বিষয়ক বক্তব্য রাখেন। প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল হালিম প্রশিক্ষণ সমন্বয়কের দায়িত্বে ছিলেন। প্রশিক্ষণে বিভিন্ন পর্যায়ের ৮৫জন সংবাদকর্মী অংশ গ্রহণ করেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *