যশোরে প্রাইভেটকারে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ৪

জাতীয়

অনলাইন ডেস্ক : যশোরের অভয়নগরে ট্রেনের ধাক্কায় একটি প্রাইভেটকারের নারী ও শিশুসহ চার আরোহী নিহত হয়েছেন; আহত হয়েছেন আরও দুই জন।
হতাহতরা সবাই প্রাইভেটকারের যাত্রী। নিহতদের মধ্যে তিনজন একই পরিবারের।

নিহতরা হলেন- নড়াইল শহরের ভোয়াখালির বাসিন্দা প্রকৌশলী হিরক (৪০), তার স্ত্রী শাওন (৩০), ভাতিজি রাইসা (৭) এবং হিরকের বন্ধু আশরাফুল (৪২)। এছাড়া আহত হয়েছে হিরকের শিশুকন্যা হুমায়রা (দেড় বছর) ও বোন শিল্পী। তাদেরকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে নওয়াপাড়ার ভৈরব ব্রিজ রেল ক্রসিংয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে অভয়নগর থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে ওসি তাজুল ইসলাম জানান, ভৈরব ব্রিজ থেকে একটি প্রাইভেটকার যশোর-খুলনা মহসড়কের দিকে যাচ্ছিল। ভৈরব ব্রিজ রেল ক্রসিংয়ে খুলনাগামী ট্রেন ‘মহানন্দা এক্সপ্রেসের’ ধাক্কায় প্রাইভেটকারটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে দুই জন নিহত হয়। আহত তিন জনকে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পর এক শিশু এবং খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর আরেকজনের মৃত্যু হয়।

ওসি আরও জানান, অভয়নগরের এলবি টাওয়ারে ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যে আসার পথে এই দুর্ঘটনার শিকার হন তারা। নিহতদের বিস্তারিত পরিচয় জানতে নড়াইলে খবর দেওয়া হয়েছে। স্বজনরা এলে বাকিদের পরিচয় জানা যাবে।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে নওয়াপাড়া রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মহসীন রেজা জানান, ভৈরব নদের ওপার থেকে প্রাইভেটকারটি (ঢাকা মেট্রো গ-৪৩-০৩২৪) ভৈরব ব্রিজ পার হয়ে যশোর-খুলনা মহাসড়কে উঠছিল। ভাঙ্গাগেট এলাকায় রেললাইন পার হওয়ার সময় খুলনাগামী মহানন্দা এক্সপ্রেসের ধাক্কায় প্রাইভেটকারটি দুমড়ে-মুচড়ে ২০০-৩০০ ফুট দূরে ছিটকে পড়ে।

প্রাইভেটকারে থাকা দুই শিশুসহ ছয় জনের মধ্যে দুই জন ঘটনাস্থলে নিহত হন। পাঁচ বছরের এক শিশু অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে এবং আরেক ব্যক্তি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান।

অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ইসরাত শারমিন বলেন, আহতদের হাসপাতালে আনার পথে পাঁচ বছরের একটি শিশু মারা গেছে। তিনজনের (একজন পুরুষ, একজন মহিলা ও একজন শিশু) অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *