যৌতুক দাবিতে নির্যাতন

সারাবাংলা

সকেল হোসেন, আক্কেলপুর থেকে
জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার যৌতুকের দাবিতে হাত, পা বেঁধে গৃহবধুর মাথার চুল কেটে শয়ণ ঘরে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় পুলিশ পাষণ্ড স্বামী, দেবর ও শশুড়কে আটক করেছেন।
থানার মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৫ সালে বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার পৌওতাঁ গ্রামের মাহতাব হোসেন-এর মেয়ের সঙ্গে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়নের করজি গ্রামের আবুল কালাম আজাদ-এর ছেলে রুহুর আমিনের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের কিছু দিন পড় থেকেই গৃহবধূর শাশুড়ি, শশুড়, দেবর ও স্বামী মিলিয়ে পিতার বাড়ি থেকে যৌতুক আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। স্বামী সংসার ঠিকে রাখার জন্য গরীব পিতার বাড়ি থেকে দফা দফা টাকা এনে শাশুড়ী ও শশুড়ের হাতে তুলে দিয়েছেন।
গত ১০ অক্টোবর আবারও পিতার বাড়ি থেকে যৌতুকের টাকা আনতে চাপ সৃষ্টি করলে গৃহবধূ পিতার বাড়ি থেকে যৌতুকের টাকার জন্য যেতে আপত্তি করেন। আর এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে শাশুড়ি নাজমা (৫২), শশুড় আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলু (৬০) ও দেবর শাহিন (২৫) ও স্বামী রুহুল আমিন (৩০) সকলে মিলে গৃহবধুর হাত পা বেঁধে মাথার চুল কেটে একটি ঘরে আবদ্ধ করে রাখে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন চালাই গৃহবধুর উপর।
পরবর্তীতে গ্রামবাসীর থেকে খবর পেয়ে গত ১৮ অক্টোবর নির্যাতনের শিকার গৃহবধুর পিতা মাতাসহ কয়েকজন স্বজন জামাইয়ের বাড়িতে গিয়ে দেখে তার মেয়ের মাথার চুল কাটা ও শরীরেল বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ। এ ঘটনার বিষয়টি তাদের জামাইয়ের কাছে জানতে চাইলে তাদেরকেও মারপিট করে ওই পরিবারে লোকজন। ওই দিন গ্রামবাসির সহায়তার নির্যাতিতাকে উদ্ধার করে দুপচাঁচিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এ ভর্তি করায়। নির্যাতিতা গৃহবধু কিছুটা সুস্থ্য হলে ১৯ অক্টোবর আক্কেলপুর থানায় মামলা করেন।
আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবুল লতিফ খাঁন বলেন, ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন। এ বিষয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা হবার পড়ই তিলকপুর পৌওতাঁ গ্রামে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত স্বামী, শশুড় ও দেবরকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *