রংপুর নগরী পথচারীদের নজর কাড়ছে ঘাসফুল

সারাবাংলা

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, রংপুর ব্যুরো
গোলাপের ন্যায় সৌন্দর্য ছড়িয়েছে ঘাসফুল। রংপুর মহানগরীর ব্যস্ততম সড়কের মাঝখানে এমন দৃষ্টিনন্দন দৃশ্য নজর কাড়ছে পথচারীদের। ঘ্রাণহীন এই ফুলে রংপুর শহরের প্রধান সড়কগুলোতে যেন যুক্ত হয়েছে ভিন্ন এক রঙিন আবহ। নগরের বাসিন্দারা বলছেন, সড়ক লাইটের পাশাপাশি এই ঘাসফুল পরিচ্ছন্ন নগরীতে পরিনত হয়েছে। রংপুর সিটি করপোরেশনের সড়কে চলাচল করলে দেখা যাবে এমন ফুল। বিশেষ করে নগরীর পার্ক মোড় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে লালবাগ, শাপলা, জাহাজ কোম্পানি হয়ে মেডিক্যাল মোড় পর্যন্ত যেতে নজর কাড়বে এই ঘাসফুল। নগরীর শাপলা চত্বর এলাকার মুদি ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম বলেন, রাস্তার মাঝখানে ঝাউ পাতার গাছের সাথে ঘাসফুল খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। আর এই ফুলগুলো দেখে অনেক শিশু ও স্কুল পড়ুয়া ছেলে-মেয়েরা ফাঁক পেলেই ফুল ছিড়ে মাথায় গুঁজে রাখে, আর এতে যেন তাদের আনন্দের সীমা থাকে না। রংপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী মোবাশ্বের হোসেন বলেন, সকালবেলা যখন আমরা স্কুলে যাই, সেই সময় রাস্তা কিছুটা ফাঁকা থাকে। তখন ফুলগুলো দেখতে খুব ভালো লাগে। এই ফুল সকালের চেয়ে বিকেল বেলায় আরও শোভাবর্ধন করে নগরের সড়কগুলোকে। স্থান ভেদে এই ফুলকে বিভিন্ন নামে ডাকা হয়। বাংলাদেশে এই ফুলকে টাইম ফুল বলা হয়। কারণ, এটি বিশেষ সময়ে ফুটে থাকে। বাংলাদেশের এছাড়াও গ্রামে এটিকে ‘ঘাসফুল’ নামেও ডাকা হয়। যদিও ফুলের আসল নাম এটি নয়। আবার বাংলাদেশের শহরে একে ‘পর্তুলিকা’ নামেও ডাকা হয়। সংবাদকর্মী ও সমাজসেবক মিজানুর রহমান বলেন, মেয়রের এই উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। নগরের প্রতিটি সড়কে এভাবে ঘাসফুলের পাশাপাশি যদি অন্যান্য পাতাবাহার এবং দৃষ্টিনন্দন উদ্ভিদ লাগানো হতো, তাহলে আরও ভালো লাগতো এই নগরীকে। রংপুর সিটি করপোরেশেনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, সড়কের ডিভাইডার পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে ও নগরীর সৌন্দর্যকে বিকশিত করতে মালিদের কাজে লাগিয়ে চলতি বছরে সড়কের মাঝখানের পরিত্যক্ত জায়গাতে ঘাসফুল লাগানো হয়েছে। যা ইতোমধ্যে শহরে সৌন্দর্য অনেক বাড়িয়েছে। আমরা চেষ্ট করছি আরও নতুন নতুন দৃষ্টিনন্দন কিছু সংযোজন করে এই নগরীকে সুন্দর করতে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *