রাজশাহী ইউনিভার্সিটি মাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অসহায় বন্ধুদের পাশে তেইশ বছর পর

সারাবাংলা

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে পড়ালেখা শেষে বিদায় নেওয়ার ২৩ বছর পর অসহায় বন্ধুদের খুঁজে বের করে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে এক ব্যতিক্রমী আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন রুমা-৯৪ অ্যাসোসিয়েশন (রাজশাহী ইউনিভার্সিটি মাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশন)। সংগঠনটি ইতোমধ্যে অনেক অসহায় বন্ধু-বান্ধবীদের অসুস্থতা, শীতার্তদের মাঝে ত্রাণ, করোনাকালীন সাহায্য করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বন্ধুদের নিয়ে সভা, পুনর্মিলনী, বনভোজন, হারিয়ে যাওয়া বন্ধুদের সাথে যোগাযোগসহ নানাবিধ কাজ করে চলেছে।

রাজশাহী ইউনিভার্সিটি মাস্টার্স রুমা’৯৪ অ্যাসোসিয়েশনের ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল ছুটে আসেন দিনাজপুরে মুহম্মদ আলীর গ্রামের বাড়ি তার পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে। তার স্ত্রী-সন্তানদের সাথে সাক্ষাৎ করে অর্থনৈতিকসহ নানাবিষয়ে খোঁজখবর নেন। মুহম্মদ আলীর স্ত্রীরহাতে আর্থিক ৫০ হাজার টাকা সহযোগিতার অর্থ তুলে দেন এবং অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম রিপন তার মেজো ছেলে মোবাশ্বের আহমেদ ফুয়াদের বিশ্বদ্যিালয়ে পড়ার জন্য প্রতি মাসে ৩ হাজার করে টাকা দেয়ার ঘোষণা দেন। পরবর্তীতে রুমা’৯৪ এর পক্ষ থেকে সহযোগিতার আশ্বাসও দেয়া হয়।
প্রতিনিধি দলের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডা. মো. কামরুজ্জামান সরকার, অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম রিপন, সহকারী অধ্যা. মাসুদ কবির সরকার, সহকারী অধ্যা. মো. আব্দুল্লাহ, অধ্যক্ষ ওমর ফারুক, অধ্যক্ষ শাজাহান আলী, সহকারী অধ্যা. জাহিদ সরোয়ার, সহকারী অধ্যা. আমিরুল ইসলাম, প্রভাষক- সাংবাদিক আজিজুল হক সরকার, প্রভাষক আবু হানিফা মন্ডল । প্রতিক্রিয়ায় তারা বলেন, রুমা ৯৪ উদ্দেশ্যই হলো অসহায় বন্ধুদের পাশে দাঁড়ানো।
মুহম্মদ আলীর স্ত্রী বলেন, আমার এমন দুঃসময়ে রুমা’৯৪ পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, এ আমার পরম সৌভাগ্য! আমার স্বামীর বন্ধুরা আমার দরজায় এসেছে, তাতে আমার সন্তানরাও খুশিতে আবেগাপ্লুত। রাজশাহী ইউনিভার্সিটি রমা’র অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ সুমন এবং সভাপতি প্রফেসর ড. ইসমাইল হোসেন বলেন, রুমার বন্ধুদের মানসিকতায় আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। গোটাদেশেই আমাদের কাজ চলছে। আশা করছি আগামী দিনে এই সেবার কাজটি আরো সম্প্রসারিত হবে। স্থানীয় সাংসদ শিবলী সাদিক বলেন, রাজশাহী ইউনিভার্সিটি মাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশন রুমা-৯৪ যেভাবে বন্ধুদের জন্য কাজ করছে তা অবশ্যই অনুকরণীয়। আমি প্রত্যেক শিক্ষাবর্ষে শতাধিক শিক্ষার্থীদের সহায়তা করে থাকি। মোহাম্মদ আলীর পরিবার চাইলে আমি তার ছেলেমেয়ের পড়ালেখার ব্যাপারে সহযোগিতা করবো।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *