https://www.dhakaprotidin.com/wp-content/uploads/2021/01/Rangamati-00.jpg

রাজস্থলীতে দূর্যোগ সহনীয় ঘর পেল মুক্রা-উ মারমা

সারাবাংলা

পলাশ চাকমা, রাঙ্গামাটি থেকে : উন্নয়নের ছোঁয়াতে বদলে গেছে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলাধীন দূর্গম রাজস্থলী উপজেলা। পিছিয়ে নেই ২নং গাইন্দ্যা ইউনিয়নের ওগাড়ী পাড়া মারমা অধুষ্যিত এলাকা। পুরো রাজস্থলী উপজেলায় প্রায় ৩৫ হাজারের অধিক পরিবারের বসবাস। নানামূখী সমস্যা ও অনাদরে অবহেলায় বসবাসরত সকল সম্প্রদায় এর উন্নয়নে প্রশাসন ও সরকারের উদ্যোগের কারণে বর্তমানে অবহেলিত গ্রামগুলো এখন যেন সোনালী দিনের আলোতে ঝলমল করছে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত দূর্যোগ সহনীয় ঘর উপহার মারমা জনগোষ্ঠীসহ সব সম্প্রদায়ের বসবাস করে এই রাজস্থলী উপজেলা। সম্প্রতি রাজস্থলী উপজেলার ২নং গাইন্দ্যা ইউনিয়নের ওগাড়ী পাড়া নামক এলাকায় এই কনকনে শীতে একটি ভাঙা কুঁড়েঘরে বসবাস করে আসছে ৮৯ বয়সী মুক্রাউ মারমা নামে এক বৃদ্ধা নারী।

সু-নজরে পড়ে রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ ছাদেকের। এই চিত্র দেখে ইউএনও ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারীকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার স্বরূপ একটি ঘর দিয়েছেন। এসব ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নতুন ঘর পেয়ে খুশিতে আত্মহারা। জানা যায়, প্রাচীণকাল থেকেই এসব ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বসবাস করে আসছিল পাহাড়ের চূড়ায়। তাদের নিজস্ব বসতভিটাও ছিল। এসব ভিটায় তাদের মাথাগোঁজার ঠাঁইও ছিল। অনাদরে-অবহেলায় চলে তাদের দিনাতিপাত। আয় উপার্জনের পথ ছিল পরের জমিতে শ্রম বিক্রি ও পাহাড়ের আনাচে কানাচে লতা-পাতা সংগ্রহ করে বাজারে বিক্রয় করা। বর্গা চাষাবাদ গবাদি-পশু পালন পাহাড় থেকে বনজদ্রব্য সংগ্রহ করে বিক্রি করা। এসব কাজে তারা প্রয়োজনীয় পারিশ্রমিক থেকে বঞ্চিত ছিল। সমস্যার পাহাড় নিয়ে তাদের দিনাতিপাত চলত। যোগাযোগ সমস্যা পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস সুপেয় পানীয় জল ও চিকিৎসা সংকট, স্যানিটেশন সমস্যা, পুষ্টিহীনতা, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে অসচেতনতা শিক্ষার ব্যাপারে অভাবের কারণে উদাসীনতা ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করার সুযোগ না থাকাসহ নানা সমস্যার মধ্যে তাদের দিনাতিপাত ছিল।

এদিকে উপজেলা চেয়ারম্যান উবাচ মারমা ও নির্বাহী কর্মকর্তার সার্বিক সহযোগিতায় আজকের এই পল্লীগুলো উন্নয়নের ছোঁয়াতে বদলে গিয়ে আলোকিত হয়ে উঠেছে। ৮৯ বছর বয়সী এ বৃদ্ধ নারী প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে দুর্যোগ সহনীয় একটি ঘর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা চেয়ারম্যানকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *