রাজের মুক্তি নিয়ে শিল্পার ইঙ্গিতবাহী পোস্ট

বিনোদন

ডেস্ক রিপোর্ট : পর্নগ্রাফি মামলায় টানা ২ মাস কারাবাসের পর গতকাল সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) জামিন পেয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেঠির স্বামী রাজ কুন্দ্রা। ৫০ হাজার রুপি মুচলেকা দেয়ার শর্তে তাকে জামিন দিয়েছেন আদালত। খবরটি নিশ্চিত করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

স্বামী জেল থেকে মুক্তির পরই অভিনেত্রী স্ত্রীর প্রথম প্রতিক্রিয়া কী? জানতে মুখিয়ে ছিলেন নেটিজেনরা। রাজ কুন্দ্রা এবং তার স্ত্রী শিল্পার দাম্পত্যে চিড় ধরার খবরও শোনা যাচ্ছে। স্বামী জামিন পাওয়ার পর অবশেষে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলেন শিল্পা। অভিনেত্রীর ইনস্টাগ্রামে ভেসে উঠল ইঙ্গিতবাহী পোস্ট। রামধনুর এক অপূর্ব ছবির ওপর কোটে লেখা রয়েছে, ‘রামধনু এসে প্রমাণ করে, বড় কোনও ঝড়ের পর একটা সুন্দর সময় আসে’। উদ্ধৃতিটি রজার লি’র।

এই পোস্ট দেখে শিল্পার অনুরাগীদের বুঝতে অসুবিধে হয়নি তিনি কোন ঝড় আর কোন সুন্দর সময়ের কথা বলতে চেয়েছেন। এদিকে শিল্পা পুত্র ভিয়ান রাজ কুন্দ্রা পরিবারের সঙ্গে গণেশ চতুর্থী উদযাপনের একটি ছবি শেয়ার করেছেন। বাবার জামিনে মুক্তির পর ছেলে ভিয়ানের এটাই প্রথম পোস্ট। যদিও ভিয়ান বয়সে খুবই ছোট। এসব থেকে তাকে মা শিল্পা তাঁকে অনেকটাই দূরে রেখেছেন।

মঙ্গলবার সকালে গণেশ চতুর্থী শেষ হওয়ার ছবি পোস্ট করে ভিয়ানের ছবি ক্যাপশন লেখা, ‘গণেশ দেবতার শুঁড়ের মতোই লম্বা জীবনের যাত্রা, কষ্টটা তার মাউসের মতো ছোট, মোদকের মতো মিষ্টি। গণপতি বাপ্পা মোরিয়া!’

গত ১৯ জুলাই পর্ন বানানো এবং বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে রাজ কুন্দ্রাকে গ্রেফতার করে মুম্বাই পুলিশ। ‘হটশটস’ ও ‘বলিফেম’ নামের দুটি অ্যাপ তৈরি করে সেগুলোতে পর্নভিডিও প্রচার করতেন তিনি। কেবল তিনি নন, তার সঙ্গে যুক্ত প্রায় ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

এরপর গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাজ কুন্দ্রার বিরুদ্ধে ১ হাজার ৪০০ পাতার চার্জশিট দাখিল করে মুম্বাই অপরাধ দমন শাখা। সেই চার্জশিটে রাজের শ্যালক প্রদীপ বক্সীর নামও উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, অভিনেত্রী শিল্পা শেঠির সঙ্গে রাজ কুন্দ্রার বিয়ে হয় ২০০৯ সালে। দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে বড় হওয়া রাজ নানারকম ব্যবসার সুবাদে অঢেল অর্থসম্পদের মালিক হন। গত কয়েক বছরে তিনি পর্নভিডিওর ব্যবসা করেও নাকি প্রচুর অর্থ কামিয়েছেন। যদিও শিল্পা জানান যে, তিনি এসবের কিছুই জানতেন না। তার অগোচরেই রাজ এই কর্মকাণ্ড চালিয়ে গিয়েছিল।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *