বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৮:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
শ্রীপুরে র‌্যাব পরিচয়ে ১৯ লাখ টাকা ছিনতায়,গ্রেফতার-৫ সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একজন ভারতীয় শ্রমিকসহ নিহত-৩ ঘাটাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় কৃষি কর্মকর্তাসহ নিহত ২ আহত-১ মুরাদনগরে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির অপরাধে আটক-১ সালথায় দেশীয় প্রজাতির পোনা মাছ অবমুক্তকরণ দশমিনায় শিক্ষার্থীর কীটনাশক খেয়ে আত্নহাত্যা মহিলা অধিদপ্তরের জেন্টার প্রমোটর কে নির্যাতনের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন নাজিরপুরে মামার ইজি বাইকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ভাগিনার মৃত্যু শাহজাদপুরে সমাজসেবা অধিদপ্তর কতৃত রোগীদের চেক বিতরণ প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনার শরণখোলায় ৪ হাজার নারিকেল চারা বিতরণ পাকিস্তানে বেড়েছে গাধা দেশের কারাগারে আটক ৩৬৩ বিদেশি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সকালে খালি পেটে আদার রস খাবেন যে কারণে বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব মুরাদনগর উপজেলা চেয়ারম্যান হিসাবে শপথ নিলেন ড. কিশোর ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোরবানীর পশুর বর্জ্য অপসারণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে : তাপস গেরস্তের গরুতে আস্থা ক্রেতাদের দাম নিয়ে খামারিদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পাইকগাছায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের শ্রদ্ধা নিবেদন কাপ্তাইয়ে পুলিশের অভিযানে চোলাই মদসহ আটক-২ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা ও পানি ব্যবস্থাপনায় পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি: পরিবেশমন্ত্রী কৃষকের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তিতে কৃষি বিপনণ অধিদপ্তরের শগঋক (শস্য গুদাম ঋণ কার্যক্রম) মডেলের ভূমিকা” শীর্ষক প্রারম্ভিক জাতীয় কর্মশালা অনুষ্ঠিত  শাহজাদপুরে ৩ আসামী গ্রেফতার কেপিএম সিবিএ নির্বাচনে শ্রমিক কর্মচারী পরিষদ বিজয়ী সারাদেশে কতজন রোহিঙ্গা ভোটার, জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট ২০৪১ সালে ৮৫ লাখ মেট্রিকটন মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ : আব্দুর রহমান ফেনীতে উপজেলা নির্বাচনে পরাজিত ১৮ প্রার্থী জামানত হারাচ্ছেন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে নবীগঞ্জে জমে উঠেছে পশুর হাট শেরপুরের সন্তান ওয়াকার উজ জামান সেনাপ্রধান হওয়ায় শেরপুরে আনন্দ মিছিল তুরাগে এক কিশোরীর আত্মহত্যা কাপ্তাইয়ে ৪০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পেল মাচাং ঘর

রাশিয়া বিশ্বকাপে নজড়কাড়া সেই সুন্দরী প্রেসিডেন্ট এখন কোথায়?

অনলাইন ডেস্ক :
রবিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৫:৪৮ অপরাহ্ন

ঢাকা প্রতিদিন নারী ও শিশু ডেস্ক : গ্যালারিতে কখনও দলের জন্য গলা ফাটাচ্ছেন, কখনও ফুটবলারদের সঙ্গে মেতে উঠছেন উদ্দাম সেলিব্রেশনে। প্রোটোকলের কোনো বালাই নেই! অথচ তিনি দেশের প্রেসিডেন্ট। ভুল হলো বিশেষণে- সুন্দরী প্রেসিডেন্ট! গত বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার ফুটবল স্কিলে যখম সম্মোহিত ক্রীড়া দুনিয়া, তখন সেদেশের সুন্দরী প্রেসিডেন্টের প্রাণোচ্ছলতায় মজে ছিল নেট দুনিয়া।

মনে পড়ছে কলিন্দা গ্রাবার-কিতারোভিচকে? রাশিয়া বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার ম্যাচ মানেই বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অযুত-নিযুত-লক্ষ চোখ গ্যালারিতে খুঁজতো তাকে। দেশকে অনুপ্রেরণা দিতে তার উপস্থিতি ছিল অনিবার্য। তার উচ্ছ্বল হাসি যেমন জায়গা করে নিয়েছিল কোটি দর্শকের মনে, তেমনি তার সৌন্দর্যের দ্যুতি ছাপ ফেলেছিল কোটি যুবকের হৃদয়ে। ২০১৮ সালে গুগল অনুসন্ধানে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশিবার তাকেই খোঁজা হয়েছে।

২০১৮ সালের বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার সব ম্যাচেই উপস্থিত ছিলেন কলিন্দা গ্রাবার-কিতারোভিচ। ভিআইপি বক্সে বসে নয়, খেলা দেখেছেন সাধারণ দর্শকের সঙ্গে গ্যালারিতে বসে। শুধু কি তাই, কোয়ার্টার ফাইনালে জয় পাওয়ায় লুকা মদরিচদের অভিনন্দন জানাতে কিতারোভিচ চলে গিয়েছিলেন তাদের ড্রেসিংরুমে। অনেকেই মনে করেন ২০১৮ বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার ফাইনালে ওঠার পেছনে এই প্রেসিডেন্টের অবদান কম নয়।

কিতারোভিচ পরে গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, আমি শুধু একজন রাজনীতিবিদ বা প্রেসিডেন্ট হিসেবে খেলা দেখতে যাই না। শৈশবে ফুটবল খেলেছে, এমন কারও মতোই ক্রোয়েশিয়ার ফুটবলের ভক্ত হিসেবে মাঠে যাই। ভিভিআইপি বক্সে বসে খেলা দেখলে প্রথাগত পোশাক পরতে হয়। দলের হয়ে গলা ফাটাতেও সমস্যা হয়, তাই স্টেডিয়ামে বসে খেলাটা উপভোগ করতে চাই আমি।

কাতার বিশ্বকাপেও ফুটবল মাঠে বেশ ভালোভাবেই আছেন কলিন্দা গ্রাবার-কিতারোভিচ। যদিও এবার আর তিনি দেশটির প্রেসিডেন্ট নন। মিডিয়ার আলোও নেই তার ওপর। কিন্তু তাতে কি, তিনি গ্যালারি থেকে গলা ফাটিয়ে দলকে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন সমানতালে। আর বিশ্ব জানে ইতোমধ্যেই ক্রোয়েশিয়া দ্বিতীয় রাউন্ড পেরিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে।

কলিন্দা গ্রাবার-কিতারোভিচের জন্ম ১৯৬৮ সালের ২৯ এপ্রিল ক্রোয়েশিয়ার রিজিকা এলাকায়। ওই সময় ক্রোয়েশিয়া যুগোস্লাভিয়ার অধীন ছিল। তার কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৯২ সালে ক্রোয়েশিয়ার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিভাগে যোগদানের মধ্য দিয়ে। ১৯৯৩ সালে তাকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে উপদেষ্টা হিসাবে বদলি করা হয়। ২০০৩ সালে তিনি তার রাজনৈতিক দল ক্রোয়েশিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তার কূটনৈতিক জ্ঞান, নেতৃত্বগুণ এবং রাজনৈতিক ক্যারিশমা দ্রুত তাকে সাফল্যের সিঁড়িতে পৌঁছে দেয়। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের বাড়তি মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম হন তিনি। প্রায় দু-দশকের কেরিয়ারে সামলেছেন নানা কূটনৈতিক পদ, কাজের সুবিধার্থে শিখেছেন বহু ভাষা। মোট ৮টি ভাষায় কথা বলতে পারেন তিনি।

২০১১ সালে রাষ্ট্রদূতের পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ন্যাটোর সহকারী মহাসচিবের দায়িত্ব নেন কলিন্দা গ্রাবার-কিতারোভিচ। বাড়তে থাকে তার রাজনৈতিক জনপ্রিয়তা। ২০১৫ সালে ক্রোয়েশিয়ার প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তিনি। ফোর্বস ম্যাগাজিনের ২০১৭ সালের তালিকা অনুযায়ী তিনি বিশ্বের ৩৯তম সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি ছিলেন। প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব ছাড়ার পর ক্রিড়াপ্রেমী এই নারী কাজ করছেন অলিম্পিকের আন্তর্জাতিক কমিটির সদস্য হিসেবে।
ঢাকা প্রতিদিন/এআর


এই বিভাগের আরো খবর