রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াবে সকালের ৫ কাজ

লাইফ স্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক: এই মহামারীতে আমরা সবাই কিছু না কিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি। আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে কার্যকরী এবং আরও সচল রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা থেকে শুরু করে খাদ্যাভ্যাসেও বেশ পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। যেহেতু করোনা ভাইরাসের এখনও কোনো ভ্যাকসিন পাওয়া যায়নি, সেক্ষেত্রে সংক্রমণ রোধে আপানার শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এক মূল্যবান হাতিযার হিসেবে কাজ করবে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন এটিও সত্য যে, একদিনে আপনি শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে পারবেন না। এটি সময়ের সাথে সাথে তৈরি হবে। আর সেজন্য জীবনযাত্রার কিছু অভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে।

দিনের শুরু অর্থ্যাৎ সকাল হতেই একটি স্বাস্থ্যসম্মত রুটিন অনুসরণ করা উচিত যাতে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী থাকে। কিভাবে দিনটি শুরু করবেন এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তুলবেন ৫ টি উপায় প্রকাশ করছে টাইমস অফ ইন্ডিয়া।

ইয়োগা বা যোগব্যায়াম করুন
আপনার যদি সকালে ঘুম থেকে উঠতে অলসতা লাগে তাহলে বিছানা থেকেই কিছু যোগব্যায়াম করে নিতে পারেন। যেমন- শিশুদের ন্যায় অঙ্গবিক্ষেপ করা অর্থ্যাৎ হাঁটু গেড়ে বসে পিছনে হাত নিয়ে পায়ের গোড়ালি ধরে রাখা। এসব যোগব্যায়াম আপনার পেশিকে মজবুত এবং মস্তিষ্কের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করবে। এরকম কিছুক্ষণ অঙ্গবিক্ষেপ করার পর সোজা হয়ে বসুন এবং মনকে শিথিল করার জন্য শ্বাস প্রশ্বাসের কিছু ব্যায়াম করুন। এভাবে রাতের ঘুমের পরে শরীরের কার্যকারিতা বাড়িয়ে তুলুন।

প্রাকৃতিক তেল ব্যবহার
তেল ব্যবহার করা একটি প্রাচীন আয়ুর্বেদিক কৌশল। মুখে প্রায় ৪-৬ মিনিটের জন্য ঠান্ডা নারিকেল তেল ঢেলে রেখে দিন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তেলে যে লরিক অ্যাসিড রয়েছে সেটি মুখের ব্যাকটেরিয়ার ফ্যাটি স্তরটি ভেঙে ফেলে এবং জীবাণু ধ্বংস করে। শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য প্রতিদিন কৌশলটি মেনে চলবেন। সকালে ঘুম ভাঙার ঠিক পরে খালি পেটে এটি করা উচিত।

নিজেকে হাইড্রেট রাখুন
আমরা সবাই জানি যে সুস্থ থাকার জন্য নিজেদেরকে হাইড্রেটেড রাখা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। ঘুম থেকে ওঠার পরপরই দুই গ্লাস পানি পান করুন। এমনকি আরও বেশি উপকারিতার জন্য আপনি ইচ্ছে করলে লেবুর পানি, মধুর পানি কিংবা কাঁচা হলুদের পানি পান করতে পারেন।

নিয়মিত শরীরচর্চা করুন
সকালে ব্যায়াম করা অলসতা দূর করার অন্যতম সেরা উপায়। দিনের শুরুতে ৩০-৪০ মিনিট শরীরচর্চা করলে সারাদিন নিজেকে সতেজ রাখতে পারবেন। এতে আপনার শরীরের শক্তি, নমনীয়তা এবং স্ট্যামিনাও বৃদ্ধি পাবে। প্রাথমিকভাবে হাঁটা, জগিং, সাইক্লিংয়ের মতো শরীরচর্চা দিয়ে শুরু করতে পারেন এবং তারপরে শরীরের ধরন এবং স্বাস্থ্যের অবস্থা অনুযায়ী তীব্রতা বাড়িয়ে তুলতে পারেন।

স্বাস্থ্যসম্মত ব্রেকফাস্ট করুন
ব্রেকফাস্ট বা সকালের নাস্তাকে বলা হয় দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার। স্বাস্থ্যসম্মত ব্রেকফাস্ট হিসেবে প্রোটিন, কার্বস, ফ্যাট এবং ফাইবার জাতীয় খাবার রাখুন। আপনার সকালের নাস্তার প্লেটে কিছু টাটকা ফল, শস্য এবং শাকসবজী জাতীয় খাবার রাখতে ভুলবেন না কিন্তু।

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *