র‌্যাব-২ এর পৃথক অভিযানে গ্রেফতার ৪

সারাবাংলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রাজধানীর তেজগাঁও ও মোহাম্মদপুরে র‌্যাব-২ এর পৃথক অভিযানে ০১ জন অস্ত্রধারী চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল রোববার র‌্যাব-২ থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।
জানা যায়, র‌্যাব-২ এর টহল দলের কাছে তথ্য আসে একদল মাদক কারবারী মাদক ক্রয়/বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে তেজগাঁও থানাস্থ কাওরান বাজার এলাকায় অবস্থান করছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল ১৮/০৪/২০২১খ্রিঃ আনুমানিক ০২২৫ ঘটিকায় রাজধানীর তেজগাঁও থানাধীন কাওরান বাজার, নিউ সুপার মার্কেট ২নং সুপার মার্কেটের পাশের্^ বিসমিল্লাহ রাইস এজেন্সী নামক দোকানের সামনে অভিযান পরিচালনা করে অস্ত্রধারী চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ী মোঃ রনি(২৬), পিতা-মোঃ আমির হোসেন এবং মোঃ মিলন মিয়া (২৪), পিতা-মোঃ হাবিব মিয়া’কে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের তল্লাশীকালে ০১টি বিদেশী পিস্তল, ০১ রাউন্ড তাঁজা গুলি ভর্তি ম্যাগজিনসহ ৬০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক অনুসন্ধান ও জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এই অস্ত্র ব্যবহার করে রনি ও তার সহযোগীরা কারওয়ান বাজার এলাকায় বিভিন্ন কাঁচামাল ব্যবসায়ীদের নিকট হতে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা আদায় করতো। যারা তার কাজের প্রতিবাদ করে বা চাঁদা দিতে অস্বীকার করে তাদের উপর হিট এন্ড রান পদ্ধতিতে অতর্কিতে আক্রমণ করে নিমিষেই উধাও হয়ে যেত। রনি চাঁদাবাজি ছাড়াও মাদক ব্যবসা, চুরি, ডাকাতির সঙ্গে সমানভাবে সম্পৃক্ত। তারা বেশির ভাগ সময় সাধারণ মানুষকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে সবকিছু ছিনতাই করে নিত। এছাড়াও তেজগাঁও রেললাইন এলাকার মাদক ব্যবসাও নিয়ন্ত্রণ করে রনি। মোঃ রনি’র বিরুদ্ধে শুধুমাত্র তেজগাঁও থানায় বিভিন্ন ধারায় ১৩টি মামলা রয়েছে। রনি গ্রেফতারের পর কারওয়ান বাজারের এক আলু ব্যবসায়ী ভুক্তভোগী র‌্যাবকে জানায়, ১ মাস পূর্বে রনি এবং তার সহযোগীরা তাকে জোরপূর্বক অপহরণ করে গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ মিলন মিয়া’র বাসায় নিয়ে যায় এবং রাতভর নির্যাতন করে ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ নিয়ে পরের দিন ছেড়ে দেয়।
অপর এক অভিযানে গত শনিবার রাত ৭টায় র‌্যাব-২ এর দল মোহাম্মদপুর থানাধীন বেড়িবাঁধ চৌরাস্তার মোড় (সাবেক তিন রাস্তার মোড়) সাহাবুদ্দিন মার্কেটস্থ জননী হোটেল নামক দোকানের সামনে অভিযান পরিচালনা করে চাঁদাবাজিকালে চাঁদাবাজ চক্রের মোঃ সোহেল (৩৩), পিতা-মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক এবং মোঃ লিটন (২৮) নামের ০২ জন সদস্যকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামীরা মোহাম্মদপুর বেড়িবাধ এলাকায় বিভিন্ন অটো রিক্সা চালক, সিএনজি চালকসহ ঐ এলাকা ব্যবসায়ীদের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করে দীর্ঘ দিন ধরেই চাঁদা আদায় করে আসছিল। বিভিন্ন সময় চাঁদা না দিলে তাদের মারধর করত এবং যানবাহন চালাতে দিত না। আসামি থেকে প্রাপ্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই বাচাই করে ভবিষ্যতে র‌্যাব-২ এ ধরনের অভিযান অব্যাহত রাখবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *