লঙ্কা সফর পেছালে আন্তর্জাতিক ম্যাচে এবছর ফেরা হবে না

খেলাধুলা

স্পোর্টস ডেস্ক: লঙ্কা সফর না হলে বাড়তি আফসোস সাকিব-মুস্তাফিজের। টাইগারদের লঙ্কা সফর আরো এক দফা পেছালে বেশি ক্ষতি আয়োজক দেশ শ্রীলঙ্কার। কিন্তু বাংলাদেশের ক্ষতির পরিধিটাও ছোট নয় মোটেও। লংকায় যাওয়া না হলে আন্তর্জাতিক ম্যাচে এবছর হবে না ফেরা। অন্যদিকে বড় সময় পর মাঠে ফেরার প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সাকিব আল হাসানের ক্রিকেটে ফেরাও পেছাবে আরো। মুস্তাফিজেরও বাড়বে আফসোস।

করোনার বিরতি শেষে টাইগারদের অনুশীলন শুরু হয়েছে পুরোদমে। প্রতিদিন মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে নিয়ম কোরে ঘাম ঝরাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। লকডাউনে হারানো ফিটনেস আর স্কিল আগের পর্যায়ে নিয়ে যেতে চলছে লড়াই। কিন্তু আন্তর্জাতিক ম্যাচই যদি না থাকে তবে?

ক্রিকেট বিশ্লেষক নিয়ামুর রশীদ রাহুল বলেন, বিভিন্ন দেশে অনেক সিরিজ হলেও আমাদের খেলোয়াড়রা কোন সিরিজই খেলছে না। তারা নিজেরা যতই প্র্যাকটিস করুক না কেন, মাঠে না খেললে আসলে তেমন উন্নতি হয় না।

দুই দেশের বোর্ডের দরকষাকষিতে শেষ পর্যন্ত লঙ্কা সিরিজ মাঠে না গড়ালে পিছিয়ে যাবে আরো অনেক কিছু। করোনার কারণে মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলার পর আর কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচে নামা হয়নি টাইগারদের। লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজটা আবারো স্থগিত হলে জানুয়ারির আগে আর কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা হবে না টাইগারদের। তাতে কোভিডের কারণে ক্রিকেটারদের আর্থিক ক্ষতির পরিমানও বাড়বে আরো।

ক্রিকেটারদের ক্ষতির পরিধি এখানেই শেষ নয়। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে শ্রীলঙ্কা সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার কথা টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। সিরিজ আবারও স্থগিত হলে ক্রিকেট থেকে সাকিবের নির্বাসনের মেয়াদ বাড়বে আরো।

মুস্তাফিজের শঙ্কাটা অন্যখানে। বা-হাতি এই পেসারকে দলে ভেড়াতে চেয়েছিল আইপিএলের দুটি ফ্রাঞ্চাইজি। শ্রীলঙ্কা সফরের কারণে মুস্তাফিজকে অনাপত্তিপত্র দেয়নি বিসিবি। কিন্তু এবার লঙ্কায় টাইগারদের সফর না হলে সব কূল হারাবেন টাইগার রেকর্ডবয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *