‘গ্যাস লিকেজ কিংবা সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এতো ক্ষয়ক্ষতি হয় না’

জাতীয় লিড ১

ডেস্ক রিপোর্ট: বিস্ফোরক পরিদফতরের এনার্জি অ্যান্ড মিনারেল রিসোর্সেস বিভাগের ডেপুটি সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, ‘শুধু গ্যাস লিকেজ কিংবা সিলিন্ডার বিস্ফোরণের মতো সাধারণ বিস্ফোরণে এতো এক্সপ্লোশন বা ক্ষয়ক্ষতি হয় না। আমাদের অতীত অভিজ্ঞতা বলে এটা ডিফারেন্ট। এর পেছনে আরও কোনো কারণ থাকতে পারে। সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

সোমবার (২৮ জুন) দুপুরে রাজধানীর মগবাজার বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত ভবন ও সংশ্লিষ্ট এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন ।

ইঞ্জিনিয়ার আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আজ আমরা বিস্ফোরক অধিদফতর থেকে একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। গতকাল সন্ধ্যায় আমাদের তিন পরিদর্শক পরিদর্শন করে গেছেন। আজ আমরা গ্যাস ডিটেক্টরের মাধ্যমে পরীক্ষা করে বিস্ফোরণের ক্ষতিগ্রস্ত ভবনে ঘটনাস্থলে হাইড্রোকার্বনের অস্তিত্ব পেয়েছি। যা ন্যাচারাল গ্যাস অর্থাৎ সরকারিভাবে পাইপ লাইনের মাধ্যমে সরবরাহ ও কানেকশন করা হয়ে থাকে। এতো বড় বিস্ফোরণের কারণ কী, সেটা নিয়ে আমরাও দুশ্চিন্তায় আছি।’

এক প্রশ্নের জবাবে বিস্ফোরক পরিদফতরের এই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিভিন্ন ধরনের গ্যাস জমে এই বিস্ফোরণ হতে পারে বলে ধারণা করছে পরিদফতর। অনেকে অনেক ধরনের ধারণা ও মত পোষণ করছেন। আমরা অধিকতর তদন্ত সাপেক্ষে সুস্পষ্ট কারণ বলতে পারব।’

লিকেজ বলতে কী অনুমান করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিস্ফোরক এককভাবে এমনি এমনি হয় না। আশপাশে যদি আগুন থাকে, সিগারেট বা কোনো স্পার্ক থেকে হতে পারে। ইলেকট্রিক্যাল এক্সপ্লোরেশন হতে পারে, গ্যাস লাইনে লিকেজ বা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এ ঘটনা ঘটতে পারে। আমাদের আরও তদন্ত করতে হবে।’

রোববার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মগবাজারের ওয়্যারলেস গেট এলাকায় ফ্যাশন ও লাইফস্টাইল ব্র্যান্ড আড়ংয়ের শো-রুম লাগোয়া ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এই দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত সাতজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া আহত হয়েছেন ৬০ জনেরও বেশি মানুষ। তাদের মধ্যে ১৭ জন‌কে শেখ হা‌সিনা বার্ন অ্যান্ড প্লা‌স্টিক সার্জা‌রি ইন‌স্টি‌টিউটে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *