সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৫:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
দশমিনায় আওয়ামীলীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন নবীগঞ্জে বন্যা দুর্গত এলাকায় বিভাগীয় কমিশনার নন্দীগ্রামে দই-মিষ্টির প্রতিষ্ঠানে ফের জরিমানা সালথায় আ’লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী উপলক্ষে আলোচনা সভা ফেনী সদর উপজেলার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্ব গ্রহণ মুরাদনগরে উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর বর্ণাঢ্য আয়োজন জামালপুরের আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন পাইকগাছায় রাইস মিলের বর্জ্যে পরিবেশ দূষণ, দুর্ভোগে এলাকাবাসী নান্দাইলে পরিকল্পনা মন্ত্রীর স্বেচ্ছাধীন তহবিলের ১০লাখ টাকার চেক বিতরণ সালথায় হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প পাইকগাছায় বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে নয় হাজার নারিকেলের চারা বিতরণ করেন এমপি রশীদুজ্জামান আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শোভাযাত্রায় মানুষের ঢল প্রধানমন্ত্রী দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন উপকূলের উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ সালথায় ২০টি নতুন ঢাল উদ্ধার করেছে পুলিশ কাপ্তাই থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতারি পরোয়ানা ভুক্ত পলাতক আসামি আটক ২  মুরাদনগরে রোহিঙ্গা যুবকে সনদ দেওয়ায় ডিবির হাতে আটক ইউপি সচিব জলবায়ু সহিষ্ণুতা অর্জনের লক্ষ্যে বিসিসিটির সংস্কার করা হবে : পরিবেশমন্ত্রী রেমালের আঘাতে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে পাইকগাছা ও কয়রা উপজেলা:এমপি রশীদুজ্জামান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী গণমাধ্যমব্যক্তিত্ব পীযূষ বন্দোপাধ্যায় উত্তরায় মোবাইল ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার ৩ ফরিদপুরের সালথায় গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ চাষ নারায়ণগঞ্জে স্ত্রীর মামলায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান কারাগারে নবীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে! পাইকগাছায় রেমালের আঘাতে পিচের রাস্তা ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি পটুয়াখালী সোনালী অতীত বনাম দশমিনা সোনালী অতীত ফাইনাল খেলা সম্পন্ন আমাদের চারপাশের প্রকৃতিকে রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে- এমপি রশীদুজ্জামান ঈদের পর কাল থেকে অফিস খুলছে, চলবে নতুন সময় অনুযায়ী এবারের ঈদে ১ কোটি ৪ লাখ ৮ হাজার ৯১৮টি গবাদিপশু কোরবানি দেওয়া হয়েছে আসুন ঈদুল আজহার ত্যাগের চেতনায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী

লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে বিনিয়োগ বৃদ্ধি জরুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক
রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২৩, ৬:২১ অপরাহ্ন

যে কোনো সমাজে সহিংসতার প্রভাব সাংঘাতিক৷ সহিংসতা পুরো প্রজন্মকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। আর নারীর প্রতি সহিংসতা নারীর মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা। নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বিনিয়োগ বৃদ্ধি জরুরি।

আজ রোববার (২৬ নভেম্বর) ঢাকায় হোটেল সোনারগাঁওয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, জাতিসংঘ বাংলাদেশ এবং এলসিজিওয়েজ এর যৌথ উদ্যোগে ১৬ দিন ব্যাপী আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষের উদবোধনী দিনে বক্তারা এ সব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, বিশ্বে প্রতি তিনজনে একজন নারী সহিংসতার শিকার। সহিংসতা নারীর ক্ষমতায়ন ও অর্থনৈতিকসহ সকল অগ্রযাত্রার ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। আমরা আমাদের সংস্কৃতিকে নতুন আকার দিতে পারি। নারীর প্রতি সহিংসতা কমাতে পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি, বদ্ধমূল মানসিকতা এবং আচরণের পরিবর্তন অপরিহার্য।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের নিযুক্ত জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গোয়েন লুইস। তিনি বলেন, “আইন প্রণয়ন ও দ্রুত বাস্তবায়নের পাশাপাশি, প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার জন্য পর্যাপ্ত তহবিল বরাদ্দ অপরিহার্য। সামগ্রিকভাবে লিঙ্গসমতা বাজেট বরাদ্দ ট্র্যাক করার জন্য একটি সুসমন্বিত ব্যবস্থা প্রয়োজন।

বিশেষ অতিথি সুইডিশ
রাষ্ট্রদূত আলেকজান্দ্রা বার্গ ফন লিন্ডে বলেন, একটি সমাজ হিসাবে, একটি সম্প্রদায় হিসাবে, একটি পরিবার হিসাবে এবং মানুষ হিসাবে লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতার জন্য আমাদের অপরিসীম মাশুল গুণতে হয়। সহিংসতার প্রভাব প্রজন্মকে আবিষ্ট করে রাখে। সমস্ত স্তরে সম্পদ নষ্ট করে। তাই লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে বিনিয়োগ কেবল সঠিক নয়, বুদ্ধিমানের কাজ।

ইউএন উইমেন কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টটিভ গীতাঞ্জলী সিং বলেন, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে আইনগুলোর বার্ষিক পর্যবেক্ষণ এবং তাদের প্রাসঙ্গিক রাখার জন্য সময়োপযোগী সংশোধন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে বর্তমানে বিনিয়োগ যথেষ্ট নয়। সরকারকে অবশ্যই বিভিন্ন সেক্টর থেকে অর্থায়ন নিশ্চিত করতে হবে এবং জেন্ডার-প্রতিক্রিয়াশীল বাজেটিংয়ের মাধ্যমে জাতীয় বাজেট সামঞ্জস্য করতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন
ইউএনএফপিএ কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টটিভ ক্রিস্টিন ব্লকউস, অধ্যাপক তানিয়া হক ও ব্যারিস্টার ফারজানা মাহমুদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নারী নির্যাতন প্রতিরোধে মাল্টিসেক্টোরাল প্রোগামের প্রকল্প পরিচালক ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী।

গার্হস্থ্য সহিংসতা এবং কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি সংক্রান্ত বাংলাদেশের বিদ্যমান আইনি কাঠামোর মূল্যায়ন করে একটি বিস্তারিত গবেষণাপত্র সভায় উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার ফারজানা মাহমুদ। আইএলও, ইউএনএফপিএ এবং ইউএন উইমেনের সাম্প্রতিক গবেষণার ওপর ভিত্তি করে এই গবেষণাপত্রটি তৈরি করা হয়। এতে প্রয়োজনীয় উন্নতির ওপর আলোকপাত করে আইনি ফাঁকফোকর বন্ধ করা এবং এর সামর্থ্যের ওপর জোর দেওয়া হয়।

বক্তারা বলেন, নারীর প্রতি সহিংসতা কোনো দেশের একক সমস্যা নয়। বৈশ্বিক সমস্যা। অধিকাংশ নারী পরিবারের কোনো না কোনো সদস্য দ্বারা নির্যাতনের শিকার হয়। এ সহিংসতা সামাজিক রীতিনীতি, আচার, আচরণ এবং পুরুষের মনমানসিকতা দ্বারাও প্রভাবিত হয়। নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে পুরুষদের এগিয়ে আসতে হবে।


এই বিভাগের আরো খবর