শের আলী অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী স্কুল শিক্ষক-কর্মচারীরা ভালো নেই

সারাবাংলা

মোস্তফা কামাল, ঝিনাইদহ থেকে:
ভালো নেই ঝিনাইদহ জেলার হরিনাকুণ্ডু উপজেলার রঘুনাথপুরের শের আলী অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারীরা। স্বীকৃতি না হওয়া এবং অব্যাহত লকডাউনের কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে বিদ্যালয়টির স্বাভাবিক কার্যক্রম। আর এতে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন বিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক-কর্মচারীরা। জানা যায়, হরিনাকুণ্ডুর প্রত্যন্ত পল্লি জনপদের রঘুনাথ পুর গ্রামের স্থাপিত হয় শের আলী অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়। হাঁটি হাঁটি পা পা করে প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করে এলাকার প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষার আলো দেখানোর জন্যে। স্থানীয় সমাজসেবা অধিদফতরের ঝি-৪৯৩/০৩ নম্বরে নিবন্ধিত হয়ে প্রতিষ্ঠানটি এগিয়ে যেতে থাকে। ২০১৫ সালের দিকে এ বিদ্যালয়টির অবকাঠামো উন্নয়ন শুরু করেন প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি। কমিটির সভাপতি জাহিদ হাসান এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে নিভৃত জনপদে প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী স্বপ্ন দেখে শিক্ষার আলোয় মানুষ হয়ে গড়ে ওঠার। এরই ধারাবাহিকতায় ১৭ জন শিক্ষক সেখানে প্রতিবন্ধী ছেলে-মেয়েদের নিয়ে পাঠ দান শুরু করেন। হাঁটি হাঁটি পা পা করে এখন ২৪৭ জন প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রী বিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত। তাছাড়া এর সঙ্গে নৈশপ্রহরী, দপ্তরী, ও ভ্যানচালক সহ ৬ জন কর্মচারীর জীবন জীবিকাও নির্বাহ হতো। কিন্তু সাম্প্রতিক কালের ভয়াবহ করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মুখ থুবড়ে পড়েছে এলাকার জন নন্দিত এইপদ। প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়টি ফলে একদিকে মানবেতর জীবনযাপন করছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক – কর্মচারীরা। অপর দিকে ব্যাহত হচ্ছে প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রী দের পাঠদান কার্যক্রম। জেলা উপ-পরিচালক জনাব আব্দুল লতিফ শেখ বলেন, আমি নিজে সরেজমিনে বিদ্যালয়টি পরিদর্শ করি, ছাত্র-ছাত্রী অবকাঠামো সবকিছুই ঠিকঠাক আছে, যাতে দ্রুত স্বীকৃতি পায় তার সাফল্য কামনা করি। হরিনাকুণ্ডু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা নাফিস সুলতানা বলেন, এ বিদ্যালয়টি সম্পর্কে খোঁজ নিয়েছি। বিদ্যালয়টি সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে, সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুপারিশ করবো। হরিনাকুণ্ডু উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শিউলী রানী বলেন, আমার দপ্তর থেকে যতটুকু সহযোগিতা করা যায় সর্বাত্মক সহযোগিতার চেষ্টা করে যাচ্ছি। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব মোঃ রাকিবুল হাসান রাসেল বলেন প্রত্যন্ত অঞ্চলের অবহেলিত জনগোষ্ঠীর শিক্ষার আলো ছড়ানোর একটি মাধ্যম, শের আলী অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়টি যাতে দ্রুত স্বীকৃতি পায় সেই বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তাই এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি দ্রুতই যাতে স্কুলটি স্বীকৃতি প্রাপ্ত হয়, সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *