সঞ্চয়পত্রের বিক্রি নেমেছে অর্ধেকে

অর্থ-বাণিজ্য জাতীয়

অনলাইন ডেস্ক : সরকারের নানা পদক্ষেপে নতুন অর্থবছরের (২০১৯-২০) প্রথম মাসেই কমে এসেছে সঞ্চয়পত্র বিক্রি। আগের বছরের জুলাই মাসের চেয়ে এই বছর সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ অর্ধেকে নেমে এসেছে।
জুলাই মাসে ২ হাজার ১৬০ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। এর আগের বছরের (২০১৮) জুলাই মাসে ৫ হাজার ৩৬ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল। যা ২০১৯ সালের জুলাইয়ের চেয়ে ২ হাজর ৮৭৬ কোটি টাকা বেশি। জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতর সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।
সঞ্চয়পত্রের বিক্রি কমে যাওয়ার জন্য উৎসে কর বেড়ে যাওয়া ও বিভিন্ন ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপকে দায়ী করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, ‘সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করতে গিয়ে নানা ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এছাড়া উৎসে করও বাড়ানো হয়েছে। আবার ব্যাংক আমানতে সুদ হার বেড়ে যাওয়ার কারণে অনেকেই ব্যাংকের দিকে বেশি আগ্রহী হচ্ছে। ফলে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি কমে গেছে।
অন্যদিকে, ব্যাংকে আমানত বেড়ে যাচ্ছে।’
প্রসঙ্গত, ব্যাংক মালিকদের অনুরোধে সরকার সঞ্চয়পত্রের বিক্রি কমাতে বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ নেয়। এই অর্থবছরে পাঁচ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্রের সুদের ওপর উৎসে কর ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ করা হয়েছে। এছাড়া, এক লাখ টাকার বেশি মূল্যমানের সঞ্চয়পত্র কিনতে টিআইএন ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। একই ব্যক্তির একাধিক জায়গা থেকে সঞ্চয়পত্র কেনা ঠেকাতেও নেওয়া হয় পদক্ষেপ।
সরকারের এই পদক্ষেপের ফলে ব্যাংক খাতে বেড়ে গেছে আমানতের পরিমাণ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত তিন মাসেই (এপ্রিল-জুন) ব্যাংক খাতে আমানত বেড়েছে ৬০ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *