সবার প্রতি শ্রাবন্তীর প্রেম!

বিনোদন

ডেস্ক রিপোর্ট : তৃতীয় স্বামী রোশন সিংয়ের থেকে আলাদা হয়ে বর্তমানে অভিরূপ নাগ চৌধুরী নামে এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে চুটিয়ে প্রেম করছেন টলিউড নায়িকা শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। ইন্ডাস্ট্রির অন্দরে মাস দুয়েক ধরে এমন গুঞ্জনই জোরালো ভাবে শোনা যাচ্ছে। শ্রাবন্তী অভিরূপকে তার জন্মদিনে হিরার আংটি উপহার দিয়েছেন, কেক কেটে নতুন প্রেমিকের জন্মদিন পালন করেছেন- এমন খবরও শোনা গিয়েছিল।

এত সব গুঞ্জনের মাঝেই সম্প্রতি দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে নিজেকে সিঙ্গেল দাবি করলেন ওপার বাংলার অন্যতম সুন্দরী এই নায়িকা। জি নিউজকে দেওয়া ওই সাক্ষাৎকারে শ্রাবন্তীর কাছে জানতে চাওয়া হয়, আপনি কি বর্তমানে সিঙ্গেল নাকি কমিটেড? জবাবে নায়িকা বলেন, আমি প্রোপারলি সিঙ্গেল। তবে আমার পরিবার আছে, ছেলে আছে, তাদের সঙ্গে মিঙ্গেলড।’

জীবনে প্রেম আছে কি না- এমন আর একটি প্রশ্নে শ্রাবন্তীর জবাব, ‘প্রেম তো থাকবেই। সবার প্রতি প্রেম আছে। আমার পরিবার আছে, এত লক্ষ লক্ষ দর্শক যারা আমাকে এই জায়গায় নিয়ে এসেছেন, তাদের প্রতি প্রেম আছে। বাড়িতে আমার চারটি পোষ্য আছে, আমি ওদের পাপ্পি বলি। কারণ ওরা আমার কাছে সন্তানতূল্য। সুতরাং প্রেম তো থাকবেই। প্রেম না থাকলে তো অভিনয়ই করতে পারব না।’

প্রসঙ্গত, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে তৃতীয় স্বামী রোশন সিংয়ের থেকে আলাদা থাকছেন শ্রাবন্তী। যদিও এখনো তাদের ডিভোর্স হয়নি। তবে নায়িকা ডিভোর্স চেয়ে আদালতে আবেদন করেছেন ইতোমধ্যে। তার বিপক্ষে পাল্টা আবেদন করেছেন রোশন। তিনি ডিভোর্স চান না, শ্রাবন্তীর সঙ্গে সংসার করতে চান।

দুজনের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত মাসে তাদের আদালতে তলব করেছিল আদালত। কিন্তু সেখানে রোশন হাজির হলেও দেখা মেলেনি শ্রাবন্তী। যার কারণে নতুন আর একটি তারিখ দিয়েছে আদালত। ওইদিন শ্রাবন্তী-রোশন দুজনকেই হাজির থাকতে বলা হয়েছে। সেদিন পরিষ্কার হয়ে যাবে, তারা আবার এক ছাদের নিচে থাকতে শুরু করবেন কি না। যদিও সেই সম্ভাবনা একেবারেই নেই।

এদিকে গুঞ্জন, বিপুল টাকার বিনিময়ে নাকি শ্রাবন্তীকে মুক্তি দিতে রাজি আছেন রোশন। ২০১৯ সালে যেমনটা ঘটেছিল অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের বেলায়। সে সময় প্রথম স্বামী ভিক্টর ঘোষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ডিভোর্স নিতে হয়েছিল এই নায়িকাকে। একই পথে হাটতে পারেন শ্রাবন্তীও। যদিও সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে রোশন এই গুঞ্জনকে গুজব বলে উড়িয়ে দেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *