সরকারি সেবা পৌঁছতে নির্ভীক ছুটে চলা

সারাবাংলা

রনি খান, মির্জাগঞ্জ থেকে
পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার সাধারণ জনগনের কাছাকাছি সরকারি সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ে সব সময় কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান খান মো. আবু বকর সিদ্দিকী। সরকারি সব সিদ্ধান্তের সঠিক বাস্থবায়নসহ সাধারণ মানুষের প্রকৃত সেবায় নিয়োজিত হবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দায়িত্বের বাইরে গিয়েও অনেক সময় সাধারণ মানুষকে ভালো রাখার জন্য দিনরাত কাজ করেন। তখন সাধারণ মানুষসহ জনতার শ্রদ্ধার মানুষে পরিণত হোন বলেছিলাম এমনই একজন উপজেলা চেয়ারম্যানের কথা। কাজের মাধ্যমে জয় করেছেন মির্জাগঞ্জবাসীর মন।
করোনাকালে পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে করোনা ভাইরাসে সাধারণ মানুষের সুরক্ষার জন্য ছুটে বেড়ান। উপজেলার এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে তিনি ছুটছেন অসহায় পরিবারগুলোর জন্য সাহায্য নিয়ে। করোনার লকডাউনে অসহায় খেটে খাওয়া মানুষ যখন ঘরবন্দি ছিলেন তখন তিনি অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে খাদ্যসামগ্রী নিয়ে ছুটে চলেছেন ঘরে ঘরে। শুধু তাই নয়, মহামারির কবলে পড়া করোনা রোগীর খোঁজ রেখেছেন। বাড়িয়েছেন সহায়তার হাত, কখনও আবার হাতে ফল নিয়ে হাজির হয়েছেন করোনা রোগীর বাড়ীতে। যেখানে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন দিনের পর দিন, সেখানে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কাকে উপেক্ষা করে তিনি করোনায় মৃত ব্যক্তিদের দাফন কাপনে নিয়েছেন জোড়ালো ভূমিকা।
করোনার ভয়কে জয় করে মির্জাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বড় সাফল্য দেখিয়েছেন। করোনাকালে বিভিন্ন সরকারি সহায়তা ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণের লক্ষ্যে ও বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সহ স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সমন্বয় করে অসহায় দুস্থদের হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন। তিনি করোনায় বন্ধ থাকা বেসরকারি কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলোর অসহায় শিক্ষকদের সহায়তা করে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন।
মির্জাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খান মো. আবু বকর সিদ্দিকী বলেন, করোনার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত দিনরাত মাঠে কাজ করে যাচ্ছি সাধারণ মানুষদের সুরক্ষার জন্য। মির্জাগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে অসহায় গরীব ও দুস্থ মানুষের কাছে প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন মানবিক সহায়তা সঠিকভাবে পৌঁছে দিয়েছি এটা আমার দায়িত্ব। হয়তো একদিন করোনার থাবা বন্ধ হবে, পৃথিবী হবে আবার শান্ত, সেদিন আমি আপনাদের আবু বকর থাকুক আর নাই থাকুক উপজেলার মানুষ সব সময় শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ রাখবে। যতদিন বেঁচে থাকবে ততদিন মানুষের সেবায় কাজ করে যাবেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *