সরাইলের এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ মামলা

সারাবাংলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : খাল উদ্ধার করতে গিয়ে অন্যের বাড়ি খাল করার ঘটনায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতিপূরন মামলা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা প্রিয়াঙ্কার বিরুদ্ধে। কোন নোটিশ ছাড়া ওই বাড়িতে তান্ডব চালানোর অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। বাড়িতে লাগানো প্রায় শতাধিক ফলজ ও বনজ গাছ কেটে ফেলা হয় তার নির্দেশে। গত ৩০সেপ্টেম্বরের এ ঘটনায় উচ্চ আদালতের শরনাপন্ন হয়েছেন বাড়ির মালিক সরাইলের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফয়সাল আহমেদ মৃধা দুলাল। গত ১৩ অক্টোবর হাইকোর্টে রিট (রিট পিটিশন নং-৭১৬৬) করেন তিনি। এর আগে ১১ অক্টোবর সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের সচিব, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক, সরাইলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলীকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়।
রিট পিটিশন ও লিগ্যাল নোটিশে ঘটনার বর্ননায় বলা হয়, ৩০সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় কোন নোটিশ ছাড়াই সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা পুলিশ ফোর্সসহ অনেক শ্রমিক নিয়ে ফয়সাল আহমেদ মৃধা দুলালের বাড়িতে এসে বেকু দিয়ে মাটি খনন এবং করাত দিয়ে গাছগাছালি কাটতে শুরু করেন। এর কারন জানতে চাইলে সহকারী কমিশনার দুলালকে গ্রেফতার এবং ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়ার হুমকী দেন। বিকেল ৩টা পর্যন্ত ওই অভিযানে ব্যবসায়ীর নিজের জায়গায় লাগানো ৯০ থেকে ১’শটি গাছ কর্তন করা হয়। পরে সেগুলো ট্রাক ও ট্রাক্টরে করে নিয়ে যাওয়া হয়। এতে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকার এবং মানসিক ও আর্থিক ভাবে আরো ৩০লাখ টাকার ক্ষতি করা হয় বলে মামলার আবেদনে উল্লেখ করেন ব্যবসায়ী দুলাল। এছাড়া অভিযানে বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সংযোগও ক্ষতিগ্রস্থ করা হয়। অভিযানে যে জায়গাটি খনন করা হয় সেটি সরাইল-কালিকচ্ছ-নাসিরনগর রাস্তার পূর্ব পাশে অবস্থিত সিএনবি রোড এবং ভূমির রেকর্ডপত্রে সেটি নয়নজুড়ি শ্রেনীর বলে উল্লেখ রয়েছে। মামলার আবেদনে এমন ঘটনার কারন বর্ণনায় বলা হয় আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসায়ী দুলাল ও তার স্ত্রী (অবসরপ্রাপ্ত) মেজর রোজিনা ভূইয়ার অনুকূলে একটি বিএস রেকর্ড অনুযায়ী দাগ নাম্বার সংশোধন করার কাজে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সময়ক্ষেপন করেন। এরআগে কাজটি করার বিনিময়ে অবৈধভাবে নিজের চাহিদার কথা জানান। সেটি পূরণ না করায় সহকারী কমিশনার তার ওপর ক্ষিপ্ত হন এবং পরবর্তীতে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা বলেন, মামলার বিষয়ে তিনি কোন কিছু জানেন না।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *