সাতক্ষীরায় করোনা ডেডিকেটেড ২৫০ শয্যা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল দীর্ঘ হচ্ছে করোনা রোগীর সারি রোগী ভর্তি ২৬৪ ॥ মৃত্যু ৫ ॥ শনাক্ত ১২৭

সারাবাংলা

খন্দকার আনিসুর রহমান, সাতক্ষীরা থেকে:
সীমান্ত জেলা সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে একজন করোনা আক্রান্ত ও বাকী ৪ জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ৭৫ জন। আর ভাইরাসটির উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও ৩৬৩ জন। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৩৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষা শেষে ১২৭ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে, যা শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ। এ নিয়ে জেলায় গতকাল রোববার পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৬২৮ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজার ৬৭৩ জন। এ ছাড়া বর্তমানে জেলায় ৮৮০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। এর মধ্যে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২১ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১৬ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বাকী ৮৪৩ জন ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তা ছাড়া ভাইরাসটির উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গতকাল রোববার পর্যন্ত ২৪৩ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে আরও ১৪৪ জন ভর্তি রয়েছেন। এদিকে, জেলার একমাত্র করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২৫০ শয্যা এই হাসপাতালে বর্তমানে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মোট ২৬৪ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। এ ফলে চিকিৎসা সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসক, সেবিকা ও স্বাস্থ্য কর্মীদের। সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়াত করোনা প্রতিরোধে সবাইকে মাস্ক পরার ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।
অক্সিজেনে সংকটে সাতক্ষীরা মেডিকেলে কয়েকজন রোগী মৃত্যুর ঘটনায় স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) এর গঠিত তদন্ত কমিটি সাতক্ষীরা মেডিকেলের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। গতকাল রোববার সকাল থেকে হাসপাতালের অক্সিজেনের সংকট বিষয়ে তারা খোঁজ খবর নেন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেন। দলের প্রধান খুলনা বিভাগীয় সহকারী পরিচালক (স্বাস্থ্য) রফিকুল ইসলাম গাজী ও সদস্য মোংলা পোর্টের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শেখ মোশারফ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এদিকে গত বৃহস্পতিবারের ওই ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি আরও সাত দিনের সময় চেয়ে আবেদন করেছেন। তদন্ত দলের প্রধান সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. কাজী আরিফ আহমেদ জানান, সেন্ট্রাল অক্সিজেনের ফ্লো কমে যাওয়ায় কয়েকজন রোগী মৃত্যুর অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। কিন্তু শুক্রবার ও শনিবার থাকায় এবং নিহতের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলাসহ আনুসঙ্গিক কারণে এত স্বল্প সময়ে তদন্ত কার্যক্রম শেষ করা সম্ভব নয়। যে কারণে আরও সাত দিন সময় চাওয়া হয়েছে। তিনি আরও জানান, অফিসিয়ালি আমি ৬ জনের (মৃত) নাম পেয়েছি। সেন্ট্রাল অক্সিজেন ফুরিয়ে যায় ঘটনাটি এমন না, অক্সিজেন ছিল। কিন্তু প্রেসার কমে যায়। যার কারণে ৬ জন মূমূর্ষ রোগী মারা যায়। আমরা ঘটনাটির শেকড়ের সন্ধানে আছি। একটু সময় লাগবে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরা মেডিকেলে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সংকটে পড়ে অন্তত ছয়জন করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়। যদিও কর্তৃপক্ষ চারজনের মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় সাতক্ষীরা মেডিকেলের পক্ষ থেকে মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. কাজী আরিফ আহম্মেদকে প্রধান করে সদর হাসপাতালের আবাসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফয়সাল আহমেদ ও সাতক্ষীরা মেডিকেলের ডা. সাইফুল্লাহকে সদস্য করে একটি কমিটি গঠন করা হয়।
এছাড়া এ ঘটনায় একই দিনে বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. রাশিদা সুলতানা পৃথক আরেকটি কমিটি গঠন করেন। উক্ত কমিটিকেও সাত কার্যদিবসের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়।
এবিষয়ে টিমের প্রধান বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক রফিকুল ইসলাম গাজী জানান, তারা তদন্তের প্রথম কার্যদিবস শুরু করেছেন। সাতক্ষীরা মেডিকেলের তত্বাবধায়ক, অধ্যক্ষ, ওই দিনের দায়িত্বরত ২২জন কর্মকর্তা, কর্মচারির লিখিত বক্তব্য নিয়েছেন। সার্বিক ঘটনা তদন্তের পর লিখিত প্রতিবেদন দাখিল করবেন সংল্লিষ্ট দপ্তরে। এরপর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেলের তত্বাবধায়ক ডা. কুদরত-ই-খোদা জানান, বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তার গঠিত তদন্ত কমিটি রোববার তদন্তে এসেছে। তাদের তদন্ত কাজে সার্বিক সহায়তা করা হচ্ছে। এছাড়া সাতক্ষীরা মেডিকেলের নিজস্ব তদন্ত কমিটি সাত দিনের সময় চেয়েছে। তাদেরও সময় বর্ধিত করা হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *