সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে দেখতে চায় তৃণমূল

সারাবাংলা

খোরশেদ আলম, আশুলিয়া থেকে
রাজধানী ঢাকার উপকণ্ঠ সাভারের আশুলিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড। আশুলিয়া শিল্পাঞ্চল হওয়ায় সারাদেশ থেকে কাজের খোঁজে আসা মানুষগুলো এখানে পাড়ি জমান। যার ফলে এই এলাকার জনসংখ্যা অনেক বেশি। এক সময়ের অবহেলিত এই ওয়ার্ডের বাসিন্দারদের চলাচলের জন্য কাচা রাস্তা ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না। ফলে চলাচলের সময় নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতেন তারা। জনসাধারনের এই দুর্দশা আর দুরবস্থা দেখে আশুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হোসেন আলী মাস্টার জনগণের সেবা করার উদেশ্যে ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। জনসাধারণের এই জননেতা টানা দুইবার ইউপি সদস্য নির্বাচিত হয়ে ইতোমধ্যে এই ওয়ার্ডের রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের শতকারা ৮০ ভাগ সম্পন্ন করেছেন। পাল্টে দিয়েছেন এলাকার সামগ্রিক চিত্র।
আশুলিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের চারাবাগ, কুমকুমারী ও বাসাইদ এলাকার বিভিন্ন আরসিসি ঢালাইয়ের রাস্তা এবং সঙ্গে নর্দমা ব্যবস্থা দেখে আপনার মনে হতে পারে আপনি কোন মডেল টাউনে এসেছেন। তাই এই ওয়ার্ডকে একটা মডেল ওয়ার্ড হিসেবে তুলনা করা যেতেই পারে।
উন্নয়ন কাজের পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন মানবিক কর্মকাণ্ড করা এই জননন্দিত ইউপি সদস্য তার ওয়ার্ডের ভেতরে মাদক এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো-টলারেন্স নীতি অবলম্বনে কাজ করে চলেছেন।
এ ব্যাপারে ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হোসেন আলী মাস্টার বলেন, আমার ওয়ার্ডের প্রায় ৮০ ভাগ রাস্ত আরসিসি ঢালাই এবং সঙ্গে নর্দমা ব্যবস্থা ও পুল নির্মাণ করা হয়েছে। এজন্যই এই ওয়ার্ডে এখন আর জলাবদ্ধতার আশংকা নেই। আমাদের ৪নং ওয়ার্ডকে স্বপ্নের ওয়ার্ডে পরিণত করতে নিরলস কাজ করে চলেছি। ইনশাল্লাহ এই ওয়ার্ডকে সারা দেশের জন্য একটি রোল মডেল হিসেবে গড়ে তুলবো। এছাড়া রাস্তার পাশে সোলার লাইট স্থাপন করেছি। আর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এলাকার ২০ জন গৃহহীন মানুষের জন্যও ঘর তৈরি করে দিয়েছি। আমার ওয়ার্ডে বসবাসরত সব প্রতিবন্ধী, বয়স্ক ও বৃদ্ধরা নিয়মিত ভাতা পাচ্ছেন।
তিনি আরও বলেন, মহামারি করোনা কালিন পরিস্থিতির শুরু থেকে এখনও আমার ওয়ার্ডের কর্মহীন ও হতদরিদ্র মানুষের পাশে ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী দিয়ে আসছি।
আশুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আগামী কাউন্সিল সম্পর্কে হোসেন আলী মাষ্টার জানান, সেই ১৯৯০ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতি দিয়ে আমার রাজনৈতিক জীবন শুরু। এরপর আওয়ামী লীগের সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে মূল দল আওয়ামী লীগে নিজের যোগ্যতায় বর্তমান পদে এসে পৌঁছেছি। গণমানুষের নেতা দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ এনামুর রহমান, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিসেস হাসিনা দৌলা এবং সাভার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজীব এবং আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মাদবরসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীগণ বিগত সময়ে আশুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরের কর্মকান্ডকে মূল্যায়ণ দিয়ে আসন্ন কাউন্সিলে আমাকে আশুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করেন তবে আমার ৪নং ওয়ার্ডকে বাংলাদেশের একটি রোল মডেল ওয়ার্ডে পরিণত করার কাজ করে যাবো। সেই সাথে আশুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে আরও শক্তিশালী ও সুংসগঠিত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাবো।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *