সুনামগঞ্জে নিরীহ তিনটি পরিবারকে সমাজচ্যুত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সারাবাংলা

শামীম আহমদ তালুকদার, সুনামগঞ্জ থেকে : সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের হুসেনপুর গ্রামের তিনটি নিরীহ পরিবারকে টাকা পাওয়ার মিথ্যা অপবাদ ও মামলা দিয়ে জেল খাটানোর পরও সমাজচ্যুত (একঘরে) করে রাখার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় হুসেনপুর গ্রামের ভূক্তভোগী পরিবারের আয়োজনে বাড়ির রাস্তায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, গ্রামের সমাজচ্যুত মৃত. মহর আলীর ছেলে নিরীহ মো. রাজ্জাক মিয়া, তার সহোদর হেলাল মিয়া, মানিক মিয়া, হরমুজ আলী, শামীম মিয়া, খোদেজা খাতুন, কামাল হোসেন, টুকের ঘাটের কটর মিয়া, রোজিনা খাতুন, লায়েক মিয়া ও সেফা খাতুন প্রমুখ।

ভূক্তভোগীরা বলেন, হুসেনপুর গ্রামের মৃত. আস্তর আলীর ছেলে দাঙ্গাবাজ জমির হোসেন তাদের নিকট তিনলাখ তিনহাজার টাকা পাবে বলে আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করলে তিনভাই একমাস জেল খেটে বের হন। কিছুদিন যেতে না যেতেই গ্রামের সালিশ ব্যক্তিত্ব মৃত. ফজর আলীর পূত্র আরজ আলী, মৃত. আজমত উল্ল্যার পূত্র আব্দুল বারিক, মৃত. আন্তর আলীর ছেলে জমিল হোসেন, মৃত. ফিরোজ উল্ল্যার পূত্র মুজিবুর রহমান ও জমিল হোসেনের পূত্র আতিকুর রহমান গংরা মিলে নিরীহ রাজ্জাক মিয়া ও তার আরো দুইভাইকে অন্যায়ভাবে তিন লাখ তিন হাজার টাকা পাবে বলে বৈঠকে বসার আহবান জানান। রাজ্জাক মিয়া তখন সালিশ ব্যক্তিদের জানান যেহেতু আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করে জেল খাটানো হয়েছে তাই বিষয়টি আদালত সিদ্ধান্ত নিবেন। ফলে নামাংঙ্কিত সালিশ ব্যক্তিরা নিরীহ রাজ্জাক ও তাদের তিনটি পরিবারের উপর গত ১২ ফেব্রুয়ারী ফতোয়া দিয়ে এক ঘরে করে রাখার ঘোষনা দেন। এই নিরীহ পরিবারগুলো যেনো গ্রামের মসজিদে নামাজ পড়তে না পারেন, হাটবাজারে যেতে না পারেন এবং বাচ্ছারা যেনো স্কুলে যেতে না পারেন সেজন্য নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয় বলে তারা অভিযোগ করেন। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ঐ সমস্ত ফতোয়াকারী সালিশ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় প্রশাসনের উধর্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট মানববন্ধন থেকে দাবী জানানো হয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *