সুন্দরগঞ্জে আমনের ভালো ফলন

সারাবাংলা

জুয়েল রানা, সুুন্দরগঞ্জ থেকে
গাইবান্ধা সুুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আমন ধানের ভালো ফলন হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় চাষিদের পরিবারে বইছে খুশির জোয়ার। ইতোমধ্যে বেশ কিছু এলাকায় ধান কাটা শুরু হয়েছে। ডিসেম্বরের মধ্যে ধান কাটা শেষ হবে। তবে সময়মতো হালকা রোধ থাকায় হাকালুকি হাওর, তারাপুর ও বেলকা ইউনিয়নে চর এলাকায় অনেক অনাবাদি জমিতে আবাদ হওয়ায় ধানের ভালো ফলন হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় আনন্দে রয়েছেন কৃষকেরা। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার উপজেলায় আমন ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৮ হাজার ১৯৩ হেক্টর জমিতে। চাষাবাদ হয়েছে ২৭ হাজার ৮৬৩ হেক্টর জমিতে আমন চাষ হয়েছে। এবিষয়ে তারাপুর ইউনিয়নের চাচীয়ামীরগঞ্জ গ্রামের কৃষক সলেমান মিয়া বলেন, এবার আমার ৪ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের ধান চাষ করেছি। তবে গত বারের তুলনায় এবার আমার জমিতে ফলন ভালো হয়েছে। বাজারে ন্যায্যমূল্য পেলে ধানের ভর্তুকি দিতে হবে না। একই উপজেলার বেলাকা ইউনিয়নের কিশামত শদর গ্রামের আব্দুল খালেক মিয়া বলেন, অন্য বছরের তুলনায় এ বছর আমন ধানের ফলন ভালো হয়েছে। আশা করি সঠিক বাজার মূল্য পেলে বেশ লাভবান হবো। একেই গ্রামের ন¬¬¬জু মিয়া বলেন , আমি চর এলাকায় ৮ বিঘা জমিতে আমান ধান আবাদ করেছি। আগের তুলুনায় ধান অনেক ভালো হয়েছে। এখন ধান কাটতে শুরু করতে হবে তবে কৃষক সংকট থাকায় ধান কাটতে বিলম্ব হচ্ছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার একে এম ফরিদুল হক জানান, এ পর্যন্ত উপজেলায় প্রায় ৩০ শতাংশ আমন ধান কাটা হয়েছে। শ্রমিক সংকটের কারণে ধান কাটতে সময় লাগছে। আমরা ধান কাটার জন্য কৃষদের মেশিন দিয়ে সহযোগিতা করছি। আমন ধানের উৎপাদন নিয়ে তিনি বলেন, কৃষি বিভাগের সুষ্ঠু তদারকি এবং আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ও সময়মতো রোদ বৃষ্টি হওয়াতে এবার আমন ফসলে পোকার আক্রমণ এবং রোগবালাইয়ের প্রকোপ ছিল না। ফলে উপজেলায় স্বাভাবিক ভাবেই আমন ধানের ফলন ভালো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *