সুন্দরগঞ্জে কাঁচা রাস্তায় দুর্ভোগ

সারাবাংলা

জুয়েল রানা, সুুন্দরগঞ্জ থেকে
গাইবান্ধার সুুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের দোলাপাড়া গ্রাম প্রায় অর্ধশত রাস্তার বেহালদশা সৃষ্টি হয়েছে। এসব রাস্তা সঠিক সময়ে সংস্কার কাজ না করায় বর্ষার মৌসুমে একটু ভারি বৃষ্টি হলেই ভেঙে কাঁদা সৃষ্টি হয়। বর্তমানে এসব কাঁচা রাস্তার জনদুর্ভোগ চরমে, যেন দেখার কেউ নেই! সুুন্দরগঞ্জ উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়ন ও একটি আধুনিক পৌরসভা নিয়ে গঠিত। পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডের পশ্চিমে মীরগঞ্জ-রংপুর মহাসড়কের দোলাপাড়া গ্রামের সহিদার মিয়ার মুদির দোকানের পাশ দিয়ে মজিদ ব্যাপারীর বাড়ীর সামন দিয়ে তারাপুর ইউনিয়নে যাওয়া কাঁচা রাস্তা দু-ইউনিয়নের সিমান্তবর্তি এলাকা হওয়ায় কাঁচা রাস্তার বেহালদশা পরিণত হয়েছে। ইতিমধ্যে যানবাহন চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পুকুর পাড় কিংবা বিলের তীর দিয়ে বয়ে যাওয়া রাস্তার পাশের সাইডগুলো ভেঙে পড়ছে। এই কাঁচা রাস্তা দিয়ে গ্রামের প্রায় পাঁচশত পরিবারের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম। তাছাড়া গ্রামীণ রাস্তাগুলোতে ভারী যানবাহন চলাচল করায় ছোট বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। আর এসব গর্তে বৃষ্টি জল জমে কাঁদায় পরিণত হয়েছে। এই কাঁচা রাস্তা দিয়ে প্রতিদিনে চলছে কাঁকড়া, সিএনজি, ট্রলি ও ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা বর্ষাকালে কাঁচা রাস্তাটি চলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এনিয়ে ভারি যানবাহন চলাচলে প্রতিনিয়ত চলছে ছোটখাটো সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। এদিকে স্থানীয় চেয়ারম্যান কিংবা উপজেলা প্রকৌশলী বিভাগ রাস্তাটি সংস্কারে তেমন গুরুত্ব না দেওয়ায় সাধারণ মানুষের বিষন্নতা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। এর কারণ হচ্ছে এসব রাস্তা দিয়ে সিএনজি বা অটো রিক্সা চলাচল করতে চায় না। গেলেও অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে এসব ভুক্তভোগী যাত্রী সাধারণের। স্থানীয়দের দাবি অনেক বার রাস্তা বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে অবগত করা হয়েছে, তারপর ও এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি তারা। দেশ ডিজিটাল হচ্ছে কিন্তু রাস্তাগুলো এখনো কাঁচায় রয়েছে। এবিষয়ে দহবন্দ ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কবির মুকুল জানান, রাস্তাটি বিষয়ে আমি অবগত আছি, আগামী শুকনো মৌসুমে রাস্তাটি মাটি ভরাটের কাজ শুরু করবো। এ ছাড়া আগামীতে প্রকল্প ধরিয়ে রাস্তাটি ভালোভাবে মেরামত করবো যাতে জনসাধাণের যাতায়াতের আর কোন সমস্যা না হয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *