সেই ১৮ হাজার গ্রাহককে উপহার পাঠালো নগদ

অর্থ-বাণিজ্য কর্পোরেট কর্ণার

অর্থনৈতিক ডেস্ক: ‘নগদ’-এর কাছে গ্রাহক স্বার্থ সবার ওপরে। সম্প্রতি ই-কমার্স খাতের অপ্রত্যাশিত ঘটনাগুলোয় দিন শেষে গ্রাহকেরই ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু ‘নগদ’ই একমাত্র যারা কারো অপেক্ষায় না থেকে নিঃসঙ্কোচে গ্রাহকের পাশে দাঁড়ায়। এই ভরসার নামই ‘নগদ। সম্প্রতি দুটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান সিরাজগঞ্জ শপ ও আলাদিনের প্রদিপের রিফান্ড ইস্যুতে ‘নগদ’-এর গ্রাহকদের কাছে ঘটনার ব্যাখ্যা এবং ধন্যবাদ জানিয়ে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় নগদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর আহমেদ মিশুক এসব কথা বলেন।
তানভীর আহমেদ বলেন, আপনাদের আস্থায় ভালোবাসায় নগদ আজ সাড়ে ৫ কোটি মানুষের বিশাল পরিবার নিয়ে বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠানের নাম। আমরা দৈনিক ৭০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন সর্বোচ্চ নিরাপত্তার সঙ্গে নিশ্চিত করে যাচ্ছি। গত সপ্তাহ তিনেক আগে দুটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান সিরাজগঞ্জ শপ ও আলাদিনের প্রদিপের যোগসাজসে হঠাৎ করে কিছু ত্রুটিপূর্ণ রিফান্ড ঘটার সম্ভাবনা দেখ দেয়। আর ওইদিন গভীর রাতেই ওই দুটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান কর্তৃক রিফান্ড রিকুয়েস্ট অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেতে থাকে। এই সময় নগদের আটিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রায় আঠারো হাজার অ্যাকাউন্টের স্থিতি অটোমেটিক্যালি হোল্ড করে দেয়।
মিশুক বলেন, ইতোমধ্যে বিষয়টি সমাধানের জন্য আমরা প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নিয়েছি। এরপর আইনশৃংখলা বাহিনী সিরাজগঞ্জ শপের সিইও জুয়েল রানা এবং তার কিছু সহযোগিকে চিহ্নিত করতে পেরেছে। তারা অল্প কিছু সময়ের মধ্যে অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে আপনাদের প্রাপ্য রিফান্ড নিজেদের নামে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল, যা স্থিতি হোল্ড করার মাধ্যমে আটকানো সম্ভব হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে স্তিতি হোল্ড হওয়া কাস্টমারদের প্রত্যেকের অর্থ সম্পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করে সিরাজগঞ্জ শপের কাছ থেকে আপনার পাওনা রিফান্ডসহ সকল নগদ অ্যাকাউন্ট ধাপে ধাপে রিএক্টিভেট করা হয়েছে। ১৮ হাজার নগদ গ্রাহকে একটি ছোট্ট উপহার দিয়েছি যা ইতোমধ্যে আপনার একাউন্টে পৌঁছে গেছে। আমরা গর্বের সাথে বলতে চাই নগদই বাংলাদেশের প্রথম কোন প্রতিষ্ঠান হিসেবে কারো অপেক্ষায় না থেকে প্রথমেই গ্রাহকের পাশে দাঁড়ালো। যারা এই কঠিন সময়ে তাদের পরামর্শ সহযোগিতা দিয়ে আমাদের কাজকে সহজ করেছেন তাদের প্রত্যেককে আমি ধন্যবাদ দিতে চাই। বিশেষ করে বাংলাদেশ ডাকবিভাগ, বাংলাদেশ ব্যাংক , আইনশৃংখলা বাহিনী ও নগদের অভিভাবক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জাব্বারকে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *