সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ উপকেন্দ্র চিকিৎসাসেবা হ-য-ব-র-ল

সারাবাংলা

শামীম আহমদ তালুকদার, সুনামগঞ্জ থেকে:
সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ উপকেন্দ্রটি একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা দিয়ে হ-য-ব-র-ল অবস্থায় চলছে। এছাড়া সম্প্রতি উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ প্রশিক্ষণে থাকায় চিকিৎসাসেবা মারাত্বক ব্যাহত হয়ে পড়েছে। এ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ উপকেন্দ্রটি দীর্ঘদিন যাবৎ নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত হয়ে নিজেই রোগে ভুগছে। জনবলের অভাবে এই অঞ্চলের মানুষ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। স্থানীয় ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার কেন্দ্রের পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা জোৎসা আরা বেগম থাকলেও উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা হারুন আর রশীদ অনুপস্থিত রয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবৎ এ সেবা কেন্দ্রটিতে মেডিকেল কর্মকর্তা, ফার্মাসিস্ট, এমএলএস ও আয়া পদ শূন্য রয়েছে। হারুন অর রশিদ তার নিজ উদ্যোগে বেতন ভোগী ২ জন এমএলএস নিয়োগ দিয়ে ওষুধ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। ১৯৮২-৮৩ অর্থবছরে ১ একর ৮০ শতক জমির উপর এ কেন্দ্রটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে প্রায় ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি দ্বিতল ভবন নির্মাণ করা হয়। আরও জানা যায়, উপজেলার খুরমা উত্তর ইউনিয়ন, দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়ন ও গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাঁও ইউনিয়নসহ তিনটি ইউনিয়নের একটি বৃহৎ অংশের জনগোষ্ঠীর চিকিৎসাসেবার একমাত্র আশ্রয়স্থল সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ উপকেন্দ্রটি। এই কেন্দ্রের দ্বিতল ভবনটি উদ্বোধন করা হলেও নির্মাণ ত্রুটি এবং অসম্পূর্র্ণ কাজ থাকার কারণে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর ভবনটি হস্তান্তর করেনি। কিন্তু এ ভবনেই চলছে কেন্দ্রটির কার্যক্রম। বর্তমানে একজন উপ-সহকারী মেডিকেল কর্মকর্তা দিয়েই চলছে ইউনিনের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি। পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা জোৎসা আরা বেগম সপ্তাহে দুদিন এসে দায়িত্ব পালন করছেন। গত ৩১ মার্চ এ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণু উপকেন্দ্রে করোনা ভ্যাকসিন নিতে গেলে এ প্রতিবেদককে দেখা মাত্র রহস্যজনকভাবে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ তার কক্ষের দরজা বন্ধ করে দেন। হারুন অর রশিদ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, সময়মত কেন্দ্রে না আসাসহ রোগীদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ রয়েছে। তার কক্ষে বিভিন্ন ওষুধ কো¤পানীর রিপ্রেজেনটেটিভরা ভিড় করে থাকেন। এতে চিকিৎসা নিতে আসা নারীসহ রোগীরা চিকিৎসকের কাছে রোগের বর্ণনা দিতে লজ্জাবোধ করেন। এই হাসপাতালটি ওষুধ কো¤পানীর রিপ্রেজেনটেটিদের দখলে। রোগীদের প্রেসক্রিপশন নিয়ে তাদের কো¤পানীর ওষুধ লেখা আছে কি নাÑ তা দেখতে রোগীদের ওপর প্রায় হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন তারা। এতে করে রোগী ও তার স্বজনরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বিশাল সীমানা প্রাচীর থাকলেও প্রবেশ পথে কোনো দ্বার না থাকায় রাতের বেলায় অবাধে চলে লোকজনের বিচরণ। বেসরকারিভাবে ব্যক্তিগত টাকায় এমএলএস পদে দুইজনকে নিয়োগ দেওয়ায় হারুন অর রশিদের আয়ের উৎস নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তবে হারুন অর রশিদ সব সময় তার উপর আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। এ বিষয়ে জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হলেও কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি।
এ বিষয়ে কেন্দ্রের পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা জোৎসা আরা বেগম জানান, উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা প্রশিক্ষণে রয়েছেন। গত ৩১ মে করোনা ভ্যাকসিন এর দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার তারিখ ছিল এ বিষয়ে আপনি কিছু জানেন কি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাইকিং করা হবে। মোল্লাহাতা গ্রামের বাসিন্দা ফখর উদ্দিন বলেন, একজন বিসিএস ক্যাডার এখানে নিয়োগপ্রাপ্ত আছেন। তিনি এখন কোথায় আছেন? কি অবস্থায় আছেন তা জানি না? মধ্যে মধ্যে দেখেছি কৈতক হাসপাতালে বসে এই হাসপাতালের ব্যবস্থাপত্র ব্যবহার করে প্রাইভেট রোগী দেখতেন। এখন কি তিনি আছেন বা নেই সাধারণ মানুষ জানতে চায়। গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, মধ্যে মধ্যে এখানে একজন চিকিৎসক আসতেন, এখন তিনি আসছেন না। বৃহৎ এলাকার হাজার হাজার সাধারণ মানুষ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান বলেন, চিকিৎসক না থাকায় সেবা মারাত্বক ব্যাহত হচ্ছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সঙ্গে বেশ আগে আমি কথা বলেছি। তিনি জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসক ও জনবল নিয়োগে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানান। ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রাজীব চক্রবর্তীর মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. শামস উদ্দিন জানান, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি। চিকিৎসাসেবা বঞ্চিত কয়েক হাজার পরিবারের কথা বিবেচনা করে মানুষের স্বাস্থসেবা নিশ্চিত করতে সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ উপকেন্দ্রটিতে স্বাস্থ্য সরঞ্জাম, জনবল নিয়োগে অতি দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানান স্থানীয়রা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *