সৈয়দপুর-চট্টগ্রাম-যশোর রুটে বিমান চলাচল শুরু

জাতীয় লিড ১

ডেস্ক রিপোর্ট : কোভিড মহামারী নিয়ন্ত্রণে কঠোর লকডাউন ঈদের আগে শিথিলের পর অভ্যন্তরীণ রুটে তিনটি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ শাখার উপ মহাব্যবস্থাপক তাহেরা খন্দকার জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বিমান অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে সকাল সাড়ে ৭টায় সৈয়দপুরে, সকাল ৮টায় চট্টগ্রামে ও যশোরে একটি করে ফ্লাইট গিয়েছে।

প্রতিদিন ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে তিনটি, সৈয়দপুরে তিনটি, কক্সবাজারে দুটি, যশোরে দুটি, সিলেটে দুটি, রাজশাহীতে একটি ও বরিশালে একটি করে ফ্লাইট চালাবে বিমান।

ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ শাখার মহাব্যবস্থাপক মো.কামরুল ইসলাম জানান, সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সিলেট, যশোর, সৈয়দপুরে দুটি করে এবং কক্সবাজার, বরিশাল, রাজশাহীতে একটি করে ফ্লাইট গেছে।

চট্টগ্রাম, সিলেট, যশোর, সৈয়দপুর, কক্সবাজার, বরিশাল, রাজশাহী থেকে একটি করে ফ্লাইট ঢাকায় এসেছে।

নভোএয়ার থেকে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সৈয়দপুর, যশোর, কক্সবাজার, রাজশাহী ও বরিশালে একটি করে মোট ছয়টি ফ্লাইট পরিচালিত হয়েছে।

সারাদিন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সৈয়দপুর ও যশোরে ছয়টি করে, বরিশালে চারটি, রাজশাহী তিনটি এবং সিলেট ও কক্সবাজারে দুটি করে ফ্লাইট পরিচালিত হবে।

কোভিড মহামারী নিয়ন্ত্রণে চলমান কঠোর লকডাউন ঈদের আগে শিথিলের পর মঙ্গলবার ১৫ থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেয় বেবিচক।

তবে কোভিড সংক্রমণে কোরবানি ঈদের পর ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে সরকারি কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হলে ৫ অগাস্ট পর্যন্ত দেশের মধ্যে আকাশপথ আবারও বন্ধ থাকবে।

লকডাউন শিথিলের ঘোষণা আসার পরপরই অভ্যন্তরীণ রুট ফ্লাইট পরিচালনার ঘোষণা দেয় রাষ্ট্রায়াত্ত বিমান সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলা, নভোএয়ার।

এর আগে ৫ জুলাই এক নির্দেশনায় বেবিচক ৮ জুলাই প্রথম প্রহর থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত সব ধরনের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রাখে।

ওই সময় আট দেশ থেকে ফ্লাইট আসাও বন্ধ রেখেছিল নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

দেশে কোভিড-১৯ মহামারীর দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ১ জুলাই থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত কঠোর লকডাউন জারি করে সরকার।

পরে এই বিধি-নিষেধ ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এই সময়ে সব ধরনের গণপরিবহনও বন্ধ ছিল।

এর আগে কোভিড-১৯ সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর গত বছর মার্চে দেশে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক সব রুটে ফ্লাইট চলাচল স্থগিত করে বেবিচক।

অবশ্য জুলাই থেকে ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করে আকাশপথ। তবে চলতি বছর মার্চ থেকে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে ৫ এপ্রিল থেকে তা আবার বন্ধ করা হয়। পরে ২১ এপ্রিল থেকে ৮ জুলাই তা চালু ছিল।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *