স্বপ্নের পদ্মা সেতু, ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হলো বাংলাদেশ

জাতীয় সারাবাংলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : দক্ষিণবঙ্গের মানুষের বহুল কাঙ্ক্ষিত পদ্মা সেতু। স্বপ্ন সত্যি হলো। বহুল কাঙ্ক্ষিত এই সেতুর সর্বশেষ স্টিলের কাঠামো (স্প্যান) বসলো বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর)। এক ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হলো বাংলাদেশ, পুরো বিশ্ব।

প্রমত্তা পদ্মার কারণে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২৯টি জেলার সঙ্গে সড়কপথে রাজধানী থেকে সরাসরি যোগাযোগ ছিল না। সড়কপথে যোগাযোগের এই দুরবস্থা লাঘবে ১৯৯৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ‘পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পের প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই করেছিল। এরপর ২০০৩ থেকে ২০০৫ সালে জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) মাধ্যমে এর সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়। সেই সম্ভাব্যতার ওপর ভিত্তি করে ২০০৭ সালে পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) প্রণয়ন করা হয়। তখন ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা খরচে ২০০৭-২৮ থেকে ২০১৪-২০১৫ মেয়াদে পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রস্তাব অনুমোদন হয়।

এ প্রকল্পের প্রধান কাজগুলো হলো- ভূমি অধিগ্রহণ, ১২ কিলোমিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ, সার্ভিস এরিয়া-২ নির্মাণ, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার সড়ক-রেল সেতু নির্মাণ, ১৪ কিলোমিটার নদী শাসন, ইঞ্জিনিয়ারিং সাপোর্ট এবং সেফটি, কন্সট্রাকশন সুপারভিশন, পুনর্বাসন, পরিবেশগত কার্যক্রম ও ম্যানেজমেন্ট সাপোর্ট।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র বলছে, ২০০৭ সালে ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল ডিপিপি প্রণয়নের পর প্রথম সংশোধন আনা হয় ২০১১ সালে। প্রথম সংশোধনে ব্যয় দ্বিগুণ করে ২০ হাজার ৫০৭ কোটি করা হয়। মেয়াদকাল ধরা হয় ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। এরপর ২০১২ সালের ৯ জুলাই বাংলাদেশ সরকার নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা গ্রহণ করলে আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে প্রাপ্ত সর্বনিম্ন দর অনুযায়ী প্রকল্পটির ডিপিপি ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য ২০১৬ সালে দ্বিতীয়বার সংশোধন আনা হয়। এছাড়া ২০১৮ সালে মেয়াদ বৃদ্ধি ছাড়া বিশেষ সংশোধনীর মাধ্যমে প্রকল্পের ব্যয় ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকায় বৃদ্ধি এবং ২০১৯ সালে ব্যয় বৃদ্ধি ছাড়া বিশেষ সংশোধনীর মাধ্যমে প্রকল্পের মেয়াদ ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে মোট ২ হাজার ৬৯৩ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণের পরিকল্পনা ছিল। যার জন্য বরাদ্দ ছিল ২ হাজার ৬৯৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। তার মধ্যে চলতি বছরের মে পর্যন্ত মোট ২ হাজার ৪৩৪ দশমিক ৫৭ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে এবং দখল বুঝে নেয়া হয়েছে ১ হাজার ৪৫৩ দশমিক ০৫ হেক্টর ভূমির। ভূমি অধিগ্রহণে মোট ব্যয় হয়েছে ২ হাজার ৪৯৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

প্রকল্পের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য সাতটি পুনর্বাসন এলাকায় ২ হাজার ৯০৬টি প্লটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তার মধ্যে ২ হাজার ৬২৪টি প্লট হস্তান্তর করা হয়েছে। পুনর্বাসন বাবদ চলতি বছরের মে পর্যন্ত ৯৫৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *