স্বীকৃত প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রী না থাকলেও বনে গেছেন মস্ত বড় ডেন্টিস্ট

সারাবাংলা

সাইফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ থেকে
মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার ঝিটকা বাজারে টিটুল ডেন্টাল কেয়ারের মালিক টিটুল শেখের কোনো স্বীকৃত প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রী না থাকলেও বনে গেছেন মস্ত বড় ডেন্টিস্ট। বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিলের সনদও নেই টিটুল শেখের। তবু তিনি নামের আগে বড় বড় ডিগ্রী ব্যবহার করে রাতারাতি বনে গেছেন দন্ত রোগ বিশেষজ্ঞ। নিজের নামের সাথে দন্ত রোগ চিকিৎসা প্রযুক্তিবিদ পরিচয় ব্যবহার করে নোংরা ঘিঞ্জি পরিবেশে চেম্বার খুলে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে চলেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে নামধারী কথিত ডেন্টাল চিকিৎসক টিটুল শেখের নামে। গ্রামের অসচেতন ও অসহায় মানুষকে দন্ত চিকিৎসা দিয়ে তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা।
সরেজমিনে ঝিটকা বাজারের খাজা কলেজ রোডে যেতেই চোখে পড়ে টিটুল ডেন্টাল কেয়ার। সেখানে গেলেই দেখা যায় নানা বয়সী রোগীদের ভিড়। এসব রোগীদের মধ্যে শিশু ও বয়স্ক লোকই বেশি চোখে পড়ে। রোগীদের ভিড় ঠেলে ভেতরে প্রবেশ করতে চাইলেই তার কক্ষ থেকে আওয়াজ আসে পরে আসেন, ডাক্তার সাহেব রোগী দেখছেন। কিছুক্ষণ পরে ভেতরে প্রবেশ করতেই দেখা যায় তিনি রোগীকে নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন।
টিটুল শেখের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কারিগরি বোর্ডের আওতাধীন একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ডিপ্লোমা করে তিন বছর ধরে এই চিকিৎসা দিয়ে আসছেন তিনি। ডিপ্লোমা করে দন্ত চিকিৎসা দেওয়া এবং নামের আগে ডেন্টিস্ট পদবী ব্যবহারের বিষয়ে প্রশ্ন করলে নিয়ম মেনেই দন্ত টিকৎসা দিচ্ছেন বলে দাবি তার। তবে বিএমডিসি’র (বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল) সনদ নেই বলেও জানান তিনি।
এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন আনোয়ারুল আমিন আকন্দ বলেন, যারা ডিপ্লোমা করেছেন, তারা ডেন্টিস্টের সহযোগী হিসেবে কাজ করতে পারে। তারা নিজেরা কোন চেম্বার চালাতে পারে না। নামের আগে ডেন্টিস্ট পদবীও ব্যবহার করতে পারে না। তবে এ বিষয়ে যদি কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়, তাহলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন, ২০১০ এর ২৯ (১) ধারা অনুযায়ী নিবন্ধনকৃত কোন মেডিকেল চিকিৎসক বা ডেন্টাল চিকিৎসক এমন কোন নাম, পদবী, বিবরণ বা প্রতীক এমনভাবে ব্যবহার বা প্রকাশ করবে না যার ফলে তার কোন অতিরিক্ত পেশাগত যোগ্যতা আছে মর্মে কেউ মনে করিতে পারে, যদি না তা কোন স্বীকৃত মেডিকেল চিকিৎসা-শিক্ষা যোগ্যতা বা স্বীকৃত ডেন্টাল চিকিৎসা-শিক্ষা যোগ্যতা হয়ে থাকে। ন্যূনতম এমবিবিএস অথবা বিডিএস ডিগ্রী প্রাপ্তরা ছাড়া অন্য কেউ তাদের নামের আগে ডাক্তার পদবী ব্যবহার করতে পারবে না। আইনের ২২ (১) ধারা অনুযায়ী নিবন্ধন ছাড়া কোন মেডিকেল চিকিৎসক বা ডেন্টাল চিকিৎসক এলোপ্যাথি চিকিৎসা করিতে, অথবা নিজেকে মেডিকেল চিকিৎসক বা, ক্ষেত্রমত, ডেন্টাল চিকিৎসক বলিয়া পরিচয় প্রদান করিতে পারবেন না।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *