সড়কে জনসমাগম বাড়ছে ॥ স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

সারাবাংলা

খন্দকার আনিসুর রহমান, সাতক্ষীরা থেকে:
সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার উপসর্গ নিয়ে এক নারীসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে জেলায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন মোট ৩৭৬ জন। আর করোনায় মারা গেছেন ৭৫ জন। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৪৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা শেষে ১১৩ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। যা পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ২৬ দশমিক ৩ শতাংশ। এ নিয়ে জেলায়  মঙ্গলবার পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৮৪৩ জন। এদিকে, সাতক্ষীরায় চলমান কঠোর লকডাউনের ৬ষ্ঠ দিনেও মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই নেই। লকডাউনের নামে মানুষ যেন লুকোচুরি খেলছেন। লকডাউন উপেক্ষা করে শহরের হাট-বাজারগুলোতে মানুষ শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখেই কেনাকাটা করছেন। অনেকেরই আবার মুখে নেই কোনো মাস্ক। সড়কেও বেড়েছে জনসমাগম। শহরের অধিকাংশ দোকান পাট আংশিক খোলা রেখে বেচাকেনা করছেন। আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মোড়ে মোড়ে চেক পোস্ট বসিয়ে চলাচল কিছুটা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। এদিকে লকডাউনের বিধি নিষেধ অমান্য করায় জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ টি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৭৪টি মামলায় ৪২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
তা ছাড়া সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের ২৬ চিকিৎসককে একযোগে সংযুক্তিতে পদায়ন করা হয়েছে। এদের ১০ জনকে পদায়ন করা হয়েছে যশোর জেলা হাসপাতালে এবং ১৬ জনকে পদায়ন করা হয়েছে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে। আগামী ৭ জুলাই এর মধ্যে পদায়নকৃতদের নতুন কর্মস্থলে যোগদান করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় পরদিন ৮ জুলাই পূর্বাহ্নে বর্তমান কর্মস্থল হতে তাৎক্ষণিক অবমুক্ত হিসেবে গন্য হবে। গত সোমবার স্বাস্থ্য মšু¿ণালয়ের উপ-সচিব জাকিয়া পারভীন স্বাক্ষরিত এক পত্রে তাদের পদায়ন করা হয়। পত্রে বলা হয়েছে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে। বর্ণিত চিকিৎসকগণ করোনা ইউনিটে দায়িত্ব পালন করবেন। যশোরে জেলা হাসপাতালে বদলীকৃতরা হলেনÑ সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের ডা. মো. শরিফুজ্জামান, ডা. মো. আল মামুন হোসেন, ডা. প্রবীর কুমার দাশ, ডা. মো. মনিরুজ্জামান, ডা. মো. মোজাম্মেল হক, ডা. মো. শরিফুল ইসলাম, ডা. মো. সাইফুল ইসলাম, ডা. হোসনে আরা হোসেন, ডা. মো. সাইফুল্লাহ ও ডা. জিএম ফারুকুজ্জামান।
অপরদিকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ থেকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে বদলী করা হয়েছে, ডা. শেখ আবু সাঈদ, ডা. ফারহানা হোসেন, ডা. মোছা. খসরুবা পারভীন, ডা. সুতপা চ্যাটার্জি, ডা. মো. শামছুর রহমান, ডা. মো. ইনামুল হাফিজ, ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম, ডা. মো. ফকরুল আলম, ডা. নাসরিন সুলতানা, ডা. মো. নাছির উদ্দিন গাজী, ডা. শেখ নাজমুস সাকিব, ডা. ফাহমিদা জামান, ডা. মেহনাজ নাজরীন, ডা. উপমা গুহ রায়, ডা. মো. আনিসুর রহমান ও ডা. শরিফা জামান। সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন সাফায়াত বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বদলীকৃতরা সবাই সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে কর্মরত ছিলেন। সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে কোভিট ইউনিট স্থাপনের প্রস্তুতি হিসেবে ১৬ জনকে পদায়ন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। এটি ঠিক বদলী বলা যাবে না। করোনার অতিমারী সুষ্ঠভাবে মোকাবেলা এবং জনসেবা নিশ্চিত করতে তাদেরকে বর্ণিত কর্মস্থলে পদায়ন করা হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের তত্বাবধায়ক ডা. কুদরত ই খুদা জানান, এটিকে বদলী বলা যাবে না। করোনা পরিস্থিতির কারণে সারা বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সংযুক্তিতে পদায়ন করা হয়েছে। সে অনুযায়ী সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের ২৬ সহকারী অধ্যাপককে সংযুক্তিতে যশোর জেলা হাসপাতাল এবং সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পদায়ন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *