৬০০ কোটি ডলারে কীভাবে ক্ষুধা মিটবে, ব্যাখ্যা দিলো ডব্লিউএফপি

আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কয়েকদিন আগে সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডব্লিউএফপি প্রধান বলেছিলেন, বিশ্বজুড়ে খাদ্যসংকটে ভোগা চার কোটির বেশি মানুষকে সাহায্যের জন্য ছয়শ ৬০ কোটি ডলার প্রয়োজন। ইলন মাস্ক ও জেফ বেজসের একবারের দানই তাদের মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচাতে পারে।

বিশ্বের শীর্ষ ধনকুবের ইলন মাস্কের সম্পদের সামান্য একটি অংশ বিশ্বের ক্ষুধা সমস্যা নিরসন করতে পারে জাতিসংঘ কর্মকর্তার এমন দাবিকে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন টেসলা প্রধান ইলন মাস্ক। বলেছিলেন ডিব্লউএফপির প্রধান কীভাবে এ কাজটি করবেন তার ব্যাখ্যা দিতে পারলে টেসলার শেয়ার বিক্রি করে তহবিল গঠন করবেন। এবার সে ব্যাখ্যা ইলন মাস্ককে দিলেন ডব্লিউএফপির প্রধান।

জাতিসংঘের খাদ্য কর্মসূচির পরিচালক ও দক্ষিণ ক্যারোলিনার সাবেক রিপাবলিকান গভর্নর ডেভিড বিজলে সোমবার এ সম্পর্কিত এক হাজার শব্দের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণীর একটি লিঙ্ক টুইটারে শেয়ার করেছেন। যাতে ব্যাখ্য করা হয়েছে কীভাবে এ অর্থ ব্যয় করে বিশ্বের ক্ষুধা নিবারণ করা যাবে।

দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে থাকা ৪৩টি দেশের চার কোটিরও বেশি মানুষকে কীভাবে ছয়শ ৬০ কোটি ডলার মূল্যের খাবার খাওয়ানো যাবে তার একটি নির্দেশনা তৈরি করা হয়েছে।

ব্যাখ্যায় বলা হয়, ডব্লিউএফপি সরাসরি খাদ্য ক্রয় ও বিতরণের জন্য সাড়ে তিনশ কোটি ডলার খরচ করবে। দুইশ কোটি ডলার খরচ করা হবে নগদ অর্থ সহায়তা ও খাদ্য ভাউচারের জন্য (লেনদেন ফিসহ)।

এছাড়া, নতুন খাদ্য কর্মসূচি পরিচালনা করতে আরও ৭০ কোটি ডলার ব্যয় করা হবে। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণদের এ সহায়তা দেওয়া হবে। আরও ৪০ কোটি ডলার ব্যবহার করা হবে অপারেশন ম্যানেজমেন্ট, প্রশাসন ও দায়বদ্ধতা ও সরবরাহের সমন্বয়ের জন্য। ডব্লিউএফপির প্রধানের এমন ব্যাখ্যার পর এখন পর্যন্ত টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্কের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

সূত্র: সিএনএন

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *